ছাদ থেকে ফেলে বিএনপি নেতাকে হত্যার অভিযোগ

ইসলাম টাইমস ডেস্ক : রাজধানীর ভাটারায় বিএনপি নেতা কফিল উদ্দিন আহমদকে ছাদ থেকে ফেলে হত্যার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। নিহত কফিল উদ্দিন ঢাকা মহানগর ৪০ নম্বর ওয়ার্ড (ভাটারা) বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি ছিলেন।

নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, মঙ্গলবার গভীর রাতে দুটি মাইক্রোবাসে করে সাদা পোশাকধারী একদল পুলিশ সদস্য কফিল উদ্দিনের ভাটারার সোলমাইদ এলাকার বাসায় যায়। বাসায় তল্লাশি করে কফিল উদ্দিনকে না পেয়ে তার ছেলেকে পুলিশ ব্যাপক নির্যাতন করে বাবার খবর জানতে চায়। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে ছাদে থাকা বাবাকে দেখিয়ে দেওয়া হয়। পরে তিন তলার ছাদে উঠে পুলিশ কফিল উদ্দিনকে সেখান থেকে ফেলে দেয়।

স্বজনরা আরও জানান, এ সময় স্থানীয়রা কফিল উদ্দিনকে দ্রুত হাসপাতালে পাঠানোর চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশ সেখানেও বাধা দেয়। পরে পুলিশ চলে গেলে কফিল উদ্দিনকে পঙ্গু হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। হত্যার পর পুলিশের পক্ষ থেকে তাদেরকে গণমাধ্যমে কথা না বলতেও হুমকি দেওয়া হয়েছে।

আজ বুধবার বেলা ১১টায় নিহতের পরিবারকে সমবেদনা জানাতে যান ঢাকা-১১ আসনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী শামীম আরা বেগম। তিনি বলেন, ‘মানুষ নিরাপত্তার জন্য পুলিশের কাছে যায়। কিন্তু ছাদ থেকে ধাক্কা দিয়ে পুলিশ কফিলকে হত্যা করেছে।’

তবে ভাটারা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘পুলিশের একটি দল ডিউটি করার সময় চিৎকার চেঁচামেচির শব্দ শুনতে পায়। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারে ওই ব্যক্তি বাসার তিন তলা থেকে বেলকুনি দিয়ে নিচে নামতে গিয়ে পড়ে মারা যান।’ ছাদ থেকে ফেলে হত্যার অভিযোগের বিষয়টি মিথ্যা বলে দাবি করেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।

পূর্ববর্তি সংবাদসরকারের সাথে যোগাযোগ : কোন পথে যাচ্ছে হেফাজতে ইসলাম
পরবর্তি সংবাদচার নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থায় আ’লীগের আপত্তি