বাংলাদেশ থেকে হজে যেতে পারবেন ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হাজী

ইসলাম টাইমস ডেস্ক : বাংলাদেশ থেকে ২০১৯ সালে পবিত্র হজ পালনে সরকারি-বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ হজযাত্রী মক্কা-মদিনায় যাবেন। এর মধ্যে সরকারি কোটায় ৭ হাজার ১৯৮ এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজার জনের কোটা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টায় সৌদি আরবের জেদ্দায় হজ ও ওমরাহ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ-সৌদি আরবের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক হজ চুক্তি সই হয়।

বাংলাদেশের পক্ষে ধর্ম সচিব মো. আনিছুর রহমান ও সৌদি সরকারের পক্ষে হজ ও ওমরাহ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী আবদুল ফাত্তাহ বিন সোলায়মান মাসাত চুক্তিতে সই করেন। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসাইন এ  খবর নিশ্চিত করেছেন।

বৈঠকে ধর্ম সচিবের নেতৃত্বে অংশগ্রহণকারী একজন প্রতিনিধি জানান, গত বছরের মতো এবারও ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জনের কোটা বরাদ্দ রয়েছে। চুক্তির বাইরে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে আসন্ন হজ কোটা বৃদ্ধি করে ১ লাখ ৪৬ হাজার করার অনুরোধ জানানো হয়েছে। তবে হজ কোটা বৃদ্ধির বিষয়টি সৌদি সরকারের আন্তঃমন্ত্রণালয়ের সভায় সিদ্ধান্ত হয় বিধায় বাংলাদেশের অনুরোধের বিষয়টি ওই সভায় উত্থাপন করা হবে বলে আশ্বস্ত করা হয়েছে।

২০১৯ সালের হজে মিনায় বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নিজস্ব উদ্যোগে ক্লিনিক খোলার জন্য জমি বরাদ্দের অনুমতি প্রদানের অনুরোধ জানানো হয়। প্রতিনিধি দলের সদস্যরা জানান, বাংলাদেশ থেকে সোয়া লাখের বেশি হজযাত্রী পবিত্র হজ পালন করেন। এ সময় নিজস্ব উদ্যোগে ক্লিনিক স্থাপিত হলে ভাষাগত সমস্যায় পড়তে হবে না। এ ছাড়া হজ প্যাকেজে ফ্লাইট সিডিউলের সময়সীমা ৬০ দিনের পরিবর্তে ৪৫ দিন করারও বিষয়টি বিবেচনার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। বাংলাদেশের প্রস্তাবিত অনুরোধের বিষয়গুলো বিবেচনা করা হবে বলে জানান আবদুল ফাত্তাহ বিন সোলায়মান।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে আরও ছিলেন জেদ্দায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ, কাউন্সিলর (হজ) মাকসুদুর রহমান, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (হজ) এবিএম আমিন উল্লাহ নুরী, হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) মহাসচিব এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম প্রমুখ।

পূর্ববর্তি সংবাদজাপার ইশতেহারে ধর্ম : মুসলমানকে উপেক্ষা করে সংখ্যালঘুদের প্রাধান্য
পরবর্তি সংবাদকেউই চিরস্থায়ী নয় : পুলিশকে ড. কামাল