সরকার ও নির্বাচন কমিশন কথা রাখেনি : খেলাফত মজলিস

ইসলাম টাইমস : খেলাফত মজলিসের যুগ্মমহাসচিব এডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেছেন, সরকার ও নির্বাচন কমিশন কথা রাখেনি। নির্বাচনী মাঠকে পার্বত্য অঞ্চলের মত সম্পূর্ণরূপে অসমান করে রাখা হয়েছে। এ পার্থক্য ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। সারা দেশে বিরোধী দলীয় প্রার্থীদের ওপর হামলা, মামলা ও গ্রেফতার চলছে। তাদের অন্যায় আক্রমনে পুলিশ ও নির্বাচন কমিশন সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।

শনিবার (১৫ ডিসেম্বর) মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে খেলাফত মজলিস ঢাকা মহানগরী আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এডভোকেট জাহাঙ্গীর আরও বলেন, বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্য প্রার্থীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। মেরেধরে রক্তাক্ত ও জখম করা হচ্ছে। এ হামলা রোধে নির্বাচন কমিশনের কোনো উদ্যোগ নেই। বিরোধী দলের প্রার্থীদের নির্বাচন থেকে সরিয়ে দেয়ার জন্যে সরকারি দলের ক্যাডাররা নির্বিচারে হামলা চালাচ্ছে। ইতিহাস সাক্ষী জুলম নির্যাতন করে জনগণকে দাবিয়ে রাখা যায় না। দেশবাসী ৩০ ডিসেম্বর জুলুম নির্যাতনের সমুচিত জবাব দিবে।

সভাপতির বক্তব্যে শেখ গোলাম আসগর বলেন, ইসি, সরকার ও প্রশাসন সম্মিলিতভাবে আরেকটি নীলনকশার নির্বাচনের দিকে আগাচ্ছে। আগামী নির্বাচনের মাধ্যমে তারা দেশের জনগণের ভোটের অধিকার চিরতরে কেড়ে  নিতে চায়। কিন্তু দেশবাসী এ হীন ষড়যন্ত্র বাস্তবায়ন হতে দেবে না। দেশবাসী আগামী ৩০ ডিসেম্বর সরকারের জুলুম নির্যাতনের সমুচিত জবাব দেবে। ব্যালট বিপ্লবের মাধ্যমে জালিমশাহীর পতন ঘটাবে।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে শনিবার বিকাল ৪টায় বিজয়নগরস্থ মজলিস মিলনায়তনে ঢাকা মহানগরী সভাপতি শেখ গোলাম আসগরের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আজীজুল হকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য পেশ করেন কেন্দ্রীয় অফিস ও প্রচার সম্পাদক অধ্যাপক আবদুল জলিল, প্রকৌশলী আবদুল হাফিজ খসরু, কাজী আরিফুর রহমান, এইচ এম হুমায়ুন কবির আজাদ, এডভোকেট সৈয়দ মুহাম্মদ সানাউল্লাহ, আমীর আলী হাওলাদার প্রমুখ।

সভায় মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের জন্যে বিশেষ দোয়া-মুনাজাত করা হয়।

পূর্ববর্তি সংবাদরামাল্লায় বিক্ষোভ অব্যাহত, গ্রেফতার শতাধিক ফিলিস্তিনি
পরবর্তি সংবাদখাঁচায় বন্দী করে পাখি লালন-পালন করা যাবে?