তালেবান-মার্কিন শান্তি আলোচনা সফলতার দিকে

সংযুক্ত আরব আমিরাতে তালেবানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের আলোচনায় ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে। বুধবার আমিরাতের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম ডব্লিউএএম নিউজ এজেন্সি এ খবর দিয়েছে। সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, উভয় পক্ষের মধ্যে অনুষ্ঠিত ‘পুনর্মিলন আলোচনা’ থেকে বাস্তব ফলাফল আসছে যা সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের জন্য ইতিবাচক।

ডব্লিউএএম নিউজ এজেন্সির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আফগানিস্তানের পুনর্মিলন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে আবু ধাবিতে একটি নতুন আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।

টানা ১৭ বছরের আফগান যুদ্ধের ইতি টানতে সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যস্থতায় দেশটিতে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

আফগানিস্তানের প্রায় অর্ধেক এলাকা নিয়ন্ত্রণ করে তালেবান। ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্র ইরাক দখলের পর থেকে তারা এখন দেশটিতে সবচেয়ে শক্তিশালী অবস্থায় রয়েছে।

তালেবানের একজন কর্মকর্তা রয়টার্সকে বলেন, আমরা দখলদারিত্ব অবসানের আহ্বান জানিয়েছি। তাদের দিক থেকে বন্দি বিনিময়ের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অস্ত্রবিরতি নিয়ে কোনও আলোচনা হয়নি বলেও জানিয়েছেন তালেবানের এই কর্মকর্তা।

এর আগে চলতি মাসের গোড়ার দিকে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে আফগান শান্তি প্রচেষ্টায় সমর্থনের ঘোষণা দেয় আফগানিস্তানের প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান। দেশটিতে অন্তত দুই দফায় তালেবান কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন কাতারে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের শান্তিদূত জালমাই খলিলজাদ।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, রাজনৈতিক উপায়ে আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় ইসলামাবাদ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চিঠি লিখে আফগান যুদ্ধের অবসানের লক্ষ্যে ইসলামাবাদের সাহায্য চাওয়ার পর এ প্রতিক্রিয়া জানান তিনি।

ইসলামাবাদে আফগানিস্তান বিষয়ক আমেরিকার বিশেষ দূত জালমাই খালিলজাদের সঙ্গে সাক্ষাতে ইমরান খান বলেন, আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হলে তা পাকিস্তানের স্বার্থ রক্ষা করবে।

সম্প্রতি ইমরানকে লেখা চিঠিতে ট্রাম্প আফগানিস্তানের তালেবানকে সেদেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চাপ দেওয়ার জন্য ইসলামাবাদের প্রতি আহ্বান জানান। তালেবান আমেরিকার সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি হলেও কাবুল সরকারের সঙ্গে বৈঠকে বসতে রাজি নয়।

সূত্র: রয়টার্স, আল জাজিরা

পূর্ববর্তি সংবাদবৌদ্ধ পুনর্বাসনের মধ্য দিয়ে রাখাইনকে চূড়ান্তভাবে মুসলিম শূন্য করা হচ্ছে
পরবর্তি সংবাদইসির ভেতরেই সংকট থাকলে ভোটাররা কোথায় যাবেন?