স্বাধীনতার পর কলকাতায় প্রথম মুসলিম মেয়র ফিরহাদ হাকিম

ইসলাম টাইমস ডেস্ক : ব্রিটিশ শাসন থেকে ভারত স্বাধীন হওয়ার ৭১ বছর পর কলকাতায় প্রথমবারের মতো নির্বাচিত মুসলিম মেয়র হলেন ফিরহাদ হাকিম। উপনির্বাচনে কলকাতার একটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে জয়ী হয়ে ফিরহাদ হাকিম মেয়র পদে নিজের আসনকে পাকাপোক্ত করেছেন। ৬ জানুয়ারি ৮২ নম্বর ওয়ার্ডের উপনির্বাচনে ফিরহাদ হাকিম প্রার্থী হন। আজ বুধবার সকালে সেই নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা হয়। খবর প্রথম আলোর।

এর আগে গত বছরের নভেম্বরে কলকাতার মেয়র পদ থেকে শোভন চট্টোপাধ্যায় ইস্তফা দিলে পৌর আইন সংশোধন করে ওই পদে পশ্চিমবঙ্গের পৌর ও নগর উন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে বসানো হয়। সংশোধিত আইন অনুসারে ছয় মাসের মধ্যে একজন কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হয়ে তাঁর মেয়র পদ রক্ষা করার বাধ্যবাধকতা ছিল।

ঘোষিত ফল অনুসারে, ৮২ নম্বর ওয়ার্ডের উপনির্বাচনে কাউন্সিলর পদে বিজেপির প্রার্থীকে হারিয়ে তৃণমূলের ফিরহাদ হাকিম জয়ী হন। ফলাফল ঘোষণার পর ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘এ জয় মমতার উন্নয়নের। এই উন্নয়নের জোয়ারের কাছে ভেসে যাবে সব দল। ‘

আগের মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় ২০১০ সাল থেকে কলকাতার মেয়র পদে ছিলেন। গত বছরের ২২ নভেম্বর তিনি পদত্যাগ করেন। এরপর মমতা পশ্চিমবঙ্গের পৌর ও নগর উন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে এই পদে বসান। পৌর আইন অনুসারে, মেয়র হতে হলে কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হতে হবে। তবে ফিরহাদ হাকিম কোনো কাউন্সিলর ছিলেন না। ফিরহাদ হাকিমকে মেয়র করার জন্য মমতা রাজ্য বিধানসভায় পৌর আইন সংশোধন করে তাঁকে অস্থায়ী মেয়র হিসেবে মনোনীত করেন।

সংশোধিত আইন অনুসারে, ছয় মাসের মধ্যে ফিরহাদ হাকিমকে কলকাতার পৌর করপোরেশনের একজন কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়ে এই পদ রক্ষা করতে হবে। সেই লক্ষ্যে ৬ জানুয়ারি ৮২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদের উপনির্বাচনে লড়েন ফিরহাদ হাকিম। কলকাতা করপোরেশনে রয়েছেন ১৪৪ জন কাউন্সিলর। এর মধ্যে তৃণমূলের ১২২ জন। এ ছাড়া বামফ্রন্টের ১৪, বিজেপির ৫ ও কংগ্রেসের ২ জন।

ফিরহাদ হাকিমই হলেন ভারতের স্বাধীনতা-উত্তর কলকাতা পৌর করপোরেশনের প্রথম মুসলিম মেয়র। ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীন হওয়ার আগে কলকাতা পাঁচজন মুসলিম মেয়র পেয়েছিল। তাঁরা হলেন শের-ই-বাংলা আবুল কাশেম ফজলুল হক (১৯৩৫), এ কে এম জাকারিয়া (১৯৩৮), আব্দুর রহমান সিদ্দিকী (১৯৪০), সৈয়দ বদরুদ্দোজা (১৯৪৩) ও সৈয়দ মুহাম্মদ উসমান (১৯৪৬)।

কলকাতার প্রথম মেয়র ছিলেন দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস (১৯২৪)। নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু মেয়র হয়েছিলেন ১৯৩০ সালে এবং ডা. বিধানচন্দ্র রায় মেয়র হয়েছিলেন ১৯৩১ সালে। স্বাধীনতা-পূর্ব শেষ মেয়র ছিলেন সুধীর চন্দ্র রায় চৌধুরী (১৯৪৭)।

পূর্ববর্তি সংবাদখালেদা জিয়াকে চিকিৎসা শেষ না হতেই আবার কারাগারে নেওয়া হয়েছে: রিজভী
পরবর্তি সংবাদইয়াবাসহ পুলিশের কনস্টেবল গ্রেফতার