শনিবারও ঢাকার রাস্তায় পোশাক-শ্রমিকরা, লাঠিচার্জ-জলকামান, যান চলাচল বন্ধ বিভিন্ন পথে

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: শনিবারও রাজধানীর কয়েকটি স্থানের বিভিন্ন পোশাক কারখানার শ্রমিকরা ফের সড়কে নেমে বিক্ষোভ করছে। খবর পাওয়া গেছে, রাজধানীর ভাষানটেক, দারুস সালামের কয়েকটি কয়েকটি পোশাক কারাখানার শ্রমিকরা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করছে। বর্তমানে ভাষানটেক সড়কে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে।

আজ শনিবার সকাল ১০টার পর থেকে মিরপুর এলাকার দারুস সালাম, টেকনিক্যাল, বাংলা কলেজের সামনের সড়ক, শেওড়া পাড়া, মিরপুর-১৪ নম্বর এলাকায় সড়কে জড়ো হয়ে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করছে। এতে ওইসব এলাকার সড়কগুলোতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

ভাষানটেক থানার ওসি মুন্সি সাব্বির আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, শ্রমিকরা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করছে। এতে ভাষানটেকে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

মিরপুর থানার ওসি দাদন ফকির বলেন, বাংলা কলেজের সামনের সড়কে একটি মোটরসাইকেল ও একটি প্রাইভেটকার ভাংচুর করেছে শ্রমিকরা। ভাংচুরের ভয়ে অন্যান্য গাড়ির চলাচলও বন্ধ হয়ে গেছে। একই কারণে বাসচলাচল বন্ধ রেখেছে বাস শ্রমিকরা। পোশাক-শ্রমিকদের শান্ত করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে তিনি জানান।

একই সময় শেওড়াপাড়ার কয়েকটি কারখানার শ্রমিকরাও সড়কে নেমে আসে। তাদের অবস্থানের কারণে রোকেয়া সরণিতে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

এদিকে শ্রমিকদের বাধা না মেনে কয়েকটি মোটরসাইকেল যাওয়ার চেষ্টা করলে চালককে মারধর করা হয় ও বাইক ভাঙচুর করা হয়। এ ছাড়া একটি কারও ভাঙচুর করা হয়। শেওড়াপাড়া, টোলারবাগ, মিরপুর-১৪ থেকেও শ্রমিক বিক্ষোভের খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে টানা ষষ্ঠ দিনের মতো আশুলিয়ায় জামগড়া এলাকায় বিক্ষোভ করেছে তৈরি  পোশাক শ্রমিকরা। এ সময শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ জলকামান টিয়ারশেল ব্যবহার ও লাঠিচার্জ করে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে। তবে শ্রমিকরা পুলিশের ধাওয়া খেয়ে বিক্ষিপ্তভাবে মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে প্রায় ১০টি গাড়িতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে ভাঙচুর চালায়। জানা যায়, সকাল ৯ টা থেকে বেলা ১১ টা পর্যন্ত প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে  ১০ জন শ্রমিক আহত হয়।

পূর্ববর্তি সংবাদমঞ্চে মোদী উঠতেই ঝিমিয়ে গেল তালি!
পরবর্তি সংবাদএবার ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণের সময় বেঁধে দিলেন বদি