ইজতেমার মাঠে সাদপন্থীদের প্রবেশে টঙ্গীবাসীর আপত্তি, সকাল থেকে কাজ বন্ধ

আবরার আবদুল্লাহ ।।

কাজের অজুহাতে টঙ্গীর ইজতেমার মাঠে সাদপন্থীদের প্রবেশের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়েছে টঙ্গীর স্থানীয় জনগণ ও সাধারণ তাবলিগের সাথীরা। তারা বলছেন, কোনো অজুহাতে টঙ্গীর মাঠে সাদপন্থীরা প্রবেশ করুক –তা তারা চান। আজ গাজীপুর জেলা পুলিশ কমিশনার বরাবর দেওয়া এক আবেদনপত্রে তারা এই আপত্তির কথা জানান।

অন্যদিকে তাদের আপত্তির মুখে আজ সকাল থেকে ইজতেমা মাঠের কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত মাঠের সামান গোছানোর কাজ বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে তারা।

ইজতেমা মাঠের দায়িত্বশীল মোঃ মোস্তফা ইসলাম টাইমসকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

তবে তার দাবি হলো, মাঠের উল্লেখযোগ্য কাজ শেষ হয়েছে। মাইক, লাইট, বিদ্যুতের তারসহ মূল্যবান সামগ্রি গুদামজাত করা শেষ। এমনকি নতুন কিছু চটও খোলা সম্ভব হয়েছে। এখন বাঁশ-খুাঁটি ও চট খোলার কাজ বাকি।

মোঃ মোস্তফা বলেন, সাদপন্থীদের কোনো সহযোগিতা ছাড়াই আমরা সব যথাসময়ে কাজ শেষ করতে পারবো।

ইসলাম টাইমসের হাতে আসা সেই আবেদনপত্রে বলা হয়েছে, দীর্ঘদিন যাবত উলামায়ে কেরামের অধীনে টঙ্গীর ইজতেমার মাঠের মাদরাসা ও মসজিদসমূহ পরিচালিত হয়ে আসছে। তারাই ইজতেমা মাঠের সামান সংরক্ষণসহ অন্যান্য বিষয়গুলো আঞ্জাম দিয়ে আসছেন। এখন যদি বিষয়টির ব্যতিক্রম কিছু হয় তাহলে সাধারণ সাথীদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিতে পারে। এতে মাঠে চরম বিশৃংখলা হতে পারে। তাই গত ২২/০২/২০১৯ তারিখে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে গৃহীত সিদ্ধান্ত বাস্তবসম্মত নয় বলেই তারা মনে করছেন।

চিঠিতে তারা গত ১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখের হামলার মতো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতিরও আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, ১ ডিসেম্বর হামলার হোতা ওয়াসিফুল গংরা মূলত ইজতেমার মাঠের কাজের কথা বলে মাঠে প্রবেশ এবং আবারও বিশৃংখলা করার পায়তারা করছেন বলে তারা জানতে পেরেছেন।

পুলিশ সুপার বরাবর দেওয়া চিঠিতে দাবি করা হয়, সাদপন্থীরা মাঠে প্রবেশ করবে জানতে পেরে ইতিমধ্যে সাধারণ সাথীদের মধ্যে অসন্তোষ দানা বাধছে এবং ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। যা উভয়পক্ষকে উত্তেজনাকর পরিবেশ ও সংঘাতের মুখে ঠেলে দিতে পারে। তাই টঙ্গীর ইজতেমার মাঠে সাদপন্থীদের প্রবেশের সুযোগ বন্ধ করা হোক।

টঙ্গী ইজতেমা ময়দানে আহলে শূরার পক্ষে চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন, ডা. মোঃ আলী আসগর, মাওলানা কাজী মোহাম্মদ আলী, মোঃ জাকির আলী ও গোলাম মোহাম্মদ ইউসুফ।

পূর্ববর্তি সংবাদসেনাবাহিনীর মনোবল দুর্বল করতেই পিলখানার হত্যাকাণ্ড : মির্জা ফখরুল 
পরবর্তি সংবাদমেয়াদোত্তীর্ণ পণ্যের জন্যে ৩২ লাখ টাকা জরিমানা