তুরস্কের স্থানীয় নির্বাচন : এরদোয়ানের প্রতি আবারও আস্থা জনগণের

ইসলাম টাইমস ডেস্ক : গতকাল অনুষ্ঠিত তুরস্কের স্থানীয় নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোয়ানের নেতৃত্বাধীন জোট পিপলস এলায়েন্স ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে। মোট প্রদত্ত ভোটের ৫১.৬৫ ভাগ পেয়েছে তারা। অন্যদিকে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জোট ন্যাশনাল এলায়েন্স পেয়েছে ৩০.০৭ ভাগ ভোট।

পিপলস এলায়েন্সের প্রাপ্ত ভোটের ৫১.৬৫ ভাগ ভোটের ৪৪.৪ ভাগ ভোট প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের দল একে পার্টির।

ফলফলের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় জনগণ ধন্যবাদ দিয়ে এরদোগান বলেন, পরপর ১৫টি নির্বাচনে জনগণ আমাদের নির্বাচিত করেছে। আমরা সেবা প্রদানের বিনিময়ে তাদের আস্থার মূল্য পরিশোধ করবো।

এরদোগান বলেন, ৫৭ শতাংশ পৌরসভায় একে পার্টিকে জনগণ নির্বাচিত করেছে। আমি সকল জনগণকে ধন্যবাদ জানাই বিশেষকরে কুর্দি ভাইদের। তারা আমাদের পুনরায় সেবা করার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। আজ আঙ্কারায় একে পার্টির সদর দপ্তরের বেলকনি থেকে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেওয়া হবে।

একে পার্টি জোট প্রধান শহর ইস্তান্বুলে মেয়র পদে জয়লাভ করলেও রাজধানী আনকারা ও গুরুত্বপূরণ শহর ইজমিরে মেয়র পদে পরাজিত হয়েছে। এছাড়া গুরুত্বপূর্ণ শহর আনতালিয়াও একে পার্টির হাতছাড়া হয়েছে। মোট ৩০ টি সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে এই নির্বাচনের আগে একে পার্টির মেয়রের সংখ্যা ছিল ১৮ জন। এই নির্বাচনে ২ জন কমে ১৬ জনে দাড়িয়েছে।

কিছু সিটিতে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল না আসায় জনগণের মতামতকে প্রাধান্য দিয়েছেন এরদোগান। এরদোগান বলেন, আগামীকাল আমরা বসবো। আমার ত্রুটিগুলো আমরা বিশ্লেষণ করবো।

এরদোগান বলেন, আগামী দিনগুলোতে দল ও তুরস্কে অনেক পরিবর্তন আসবে। আগামী সাড়ে চার বছর কোনো নির্বাচন হবে না, তাই বলে আমরা কি বসে থাকবো? আমরা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়গুলোতে মনোনিবেশ করবো। আশা করি, আমাদের দেশের অনেক উত্থান ঘটবে। আমাদের লক্ষ্য থাকবে অর্থনীতিকে শক্তিশালী, উন্নয়ন অব্যাহত ও কর্মসংস্থান বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করে যাওয়া। বিশেষ করে তুরস্কের লক্ষ্য হলো সিরীয় শরনার্থীদের মানবিজ ও ফোরাতের পূর্ব পাড়ে নিরাপদে স্থানান্তরিত করা।

সূত্র : আনাদুলু এজেন্সি ও ডেইলি সাবাহ

পূর্ববর্তি সংবাদআগুন নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রীর ৫ নির্দেশনা
পরবর্তি সংবাদছিনতাইয়ের অভিযোগে জাবির ৫ ছাত্রলীগ কর্মী বহিষ্কার