ভারতের কাছে আমেরিকার ডুবোজাহাজ বিধ্বংসী হেলিকপ্টার বিক্রি

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: সমুদ্রের গভীরে লুকিয়ে থাকা শত্রু পক্ষের ডুবোজাহাজকে আকাশ থেকে চিহ্নিত করতে এবং তাকে আকাশ থেকে ধ্বংস করতে সক্ষম আমেরিকার এমন ২৪টি এমএইচ-৬০ আর মডেলের অত্যাধুনিক হেলিকপ্টার আসছে ভারতে।

ভারতের কাছে অ্যান্টি সাবমেরিন এই হেলিকপ্টার বিক্রি করতে গত মঙ্গলবার সম্মতি জানিয়েছে আমেরিকা।

ভারতীয় গণমাধ্যমটির দাবি, ভারত মহাসাগরে চীনকে জব্দ করার জন্য এই পদক্ষেপ।

এদিকে রোমিও হেলিকপ্টার বিক্রিতে সম্মতি দেওয়ার পাশাপাশি মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘দক্ষিণ এশিয়ার বিস্তীর্ণ এলাকার রাজনৈতিক স্থিতাবস্থা, অর্থনৈতিক উন্নতি এবং শান্তির জন্য ভারতের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।’

লকহিড কোম্পানির হেলিকপ্টারগুলোর পোশাকি নাম এমএইচ ৬০ আর হলেও সামরিক দুনিয়ায় এগুলো রোমিও নামে পরিচিত। ভারত মহাসাগরে বাড়তে থাকা চীনের প্রভাব নিয়ন্ত্রণে এসব হেলিকপ্টার বিশেষ কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

লকহিড কোম্পানির হেলিকপ্টারগুলোর পোশাকি নাম এমএইচ ৬০ আর হলেও সামরিক দুনিয়ায় এগুলো রোমিও নামে পরিচিত। ভারত মহাসাগরে বাড়তে থাকা চীনের প্রভাব নিয়ন্ত্রণে এসব হেলিকপ্টার বিশেষ কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

গত বছরেই এই হেলিকপ্টার কিনতে ভারতের পক্ষ থেকে প্রস্তাব যায় মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরে। কারণ, লকহিড মার্টিন নামের একটি মার্কিন সামরিক সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক সংস্থা এই হেলিকপ্টার বানালেও তা কিনতে লাগে মার্কিন সরকারের সম্মতি। গত বছরেই মার্কিন কংগ্রেসের কাছে ভারতের প্রস্তাব পাঠিয়ে দিয়েছিল সে দেশের পররাষ্ট্র দপ্তর। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘এই হেলিকপ্টার বিক্রি করা হলে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে আমাদের এক সহযোগিতা আরও শক্তিশালী হবে। ভারত-মার্কিন কৌশলগত সহযোগিতার ক্ষেত্রও আরও সম্প্রসারিত হবে।’

সামরিক বিশেষজ্ঞদের মতে, ঠান্ডা যুদ্ধ এবং তার পরবর্তী সময়ে ভারত-মার্কিন সম্পর্ক শীতল ছিল বেশি। কিন্তু উগ্রবাদের উত্থান এবং ভারত মহাসাগরে চীনের বাড়তে থাকা সামরিক এবং বাণিজ্যিক প্রভাবের কারণে গত কয়েক বছরে বদলে গেছে পরিস্থিতি। পাকিস্তানের সঙ্গে চীনের আর্থিক সম্পর্কও বাড়তে থাকায় নয়াদিল্লিকে কাছে টানছে ওয়াশিংটন। ভারতকে রোমিও বিক্রিতে সম্মতি দেওয়ায় ব্যবসার পাশাপাশি কৌশলগত বিষয়টিও জড়িত।

ভারতের হাতে থাকা পুরোনো আমলের সি-কিং হেলিকপ্টারের থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী এমএইচ-৬০ আর মডেলের রোমিও। এসব হেলিকপ্টার পেলে আরও শক্তিশালী হবে ভারতের নৌবাহিনী। ভারত মহাসাগরের বুকে লুকিয়ে সাবমেরিন পাঠানো আর অতটা সহজ হবে না প্রতিবেশী বা শক্তিশালী দেশগুলোর। ভারত মহাসাগরজুড়ে চীনের পাশাপাশি টহল দেবে ভারতও, যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার হবে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য।

 

পূর্ববর্তি সংবাদমেরাজের ঘটনা কি কুরআন-হাদীস দ্বারা প্রমাণিত?
পরবর্তি সংবাদমক্কায় হোটেলে অগ্নিকাণ্ড, ৭০০ ওমরাপালনকারী উদ্ধার