আজ বাংলা নববর্ষ

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: আজ পহেলা বৈশাখ। বাংলা নববর্ষ। বাংলা সালের প্রথম মাস বৈশাখের ১ তারিখ। ইতিহাসের সূত্র বলে, হিজরি সালের সাথে মিল রেখে এই সালের গণনা শুরু হয়। ৯৪০ হিজরি সাল থেকে বাংলা সালের সূচনা। মূলত ফসলী সাল হিসেবেই এই সালের উদ্ভাবন। চান্দ্রবর্ষের সাথে সৌরবর্ষের ১০/১১দিনের হ্রাসবৃদ্ধির কারণে বর্তমানে হিজরি সাল ১৪৪০ হলেও আজ থেকে বাংলা সাল ১৪২৬-এর শুরু।

এ দিনে গ্রাম বাংলার দোকানে দোকানে দোয়ার মাধ্যমে হালখাতার রেওয়াজ রয়েছে। মুসলমান ব্যবসায়ীরা এ দিনটিতে গ্রাহকদের দোকানে দাওয়াত দিয়ে দোয়া-দুরূদের আয়োজন করে থাকেন। সঙ্গে মিষ্টিমুখও করান। অনেকে এইদিন বকেয়া পরিশোধ করিয়ে খাতায় নতুন হিসাব শুরু করার কাজটি করেন। অবশ্য অতীত থেকেই বাংলা অঞ্চলের হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা বছরের শেষে চৈত্র সংক্রান্তিসহ নববর্ষের শুরুর দিনে নিজেদের ধর্মের রীতিনীতির সাথে মিল রেখে নানা রকম অনুষ্ঠান করে এসেছেন।

খ্রিস্টীয় ১৯৮৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অঞ্চলে বাংলা নববর্ষের দিনে প্রথম  ”মঙ্গল শোভাযাত্রা” বের করা হয়। ২০১৯ সালের পহেলা বৈশাখে এ ”শোভাযাত্রার” ৩০ বছর পূর্তি হবে।

এ ”শোভাযাত্রায়” বাঙ্গালীর মঙ্গল কামনা করে বিভিন্ন প্রাণীর নানা রকম প্রতিকৃতি ও মুখোশ বহন করা হয় ও ব্যবহার করা হয়। বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের আবেদনক্রমে ২০১৬ খ্রিস্টাব্দের ৩০ নভেম্বর  বাংলাদেশের ‘‘মঙ্গল শোভাযাত্রাকে’’ ইউনেস্কো সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করে।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, এবারের “শোভাযাত্রার” পুরোভাগে থাকবে মহিষ,পাখি ও ছানা, হাতি,মাছ,বক,জাল ও জেলে,ট্যাপা পুতুল, মা ও শিশু এবং গরুর আটটি শিল্পকাঠামো বা প্রতিকৃতি।

অবশ্য দেশের শীর্ষ আলেমরা বলছেন, বাংলা সালের উদ্ভব হিজরি সাল থেকে। এদিনে বাঙালি মুসলমানদের জন্য উচিৎ হবে না পৌত্তলিক কোনো সংস্কৃতির সঙ্গে নিজেদের যুক্ত করা। মুসলমানরা মঙ্গল কামনা করবে মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ তাআলার  কাছে।

পূর্ববর্তি সংবাদরাফির কবর জিয়ারত করতে ফেনীতে বিএনপির প্রতিনিধিদল
পরবর্তি সংবাদগাজীপুরে একরাতেই দুই জায়গায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড