নরসিংদীতে টানা ৪০ দিন নামাজ পড়ে সাইকেল পেল ২৭ কিশোর

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: নরসিংদীর শেখেরচরে টানা ৪০ দিন নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামায়াতের সহিত আদায় করে বাইসাইকেল পুরস্কার পেলেন ২৭ কিশোর।

বাবুরহাট বাসস্ট্যান্ড জামে মসজিদের খতিব মুফতি ইমদাদুল্লাহ কাসেমী কিশোরদেরকে নামাজের প্রতি আকৃষ্ট করে মসজিদমুখী করার লক্ষ্যে কিছুদিন পূর্বে পনের বছরের কম বয়সী কিশোরদের মধ্যে একটানা ৪০ দিন ৫ ওয়াক্ত নামাজ জামায়াতের সহিত আদায় করার প্রতিযোগিতা ঘোষণা করেন।

পাশাপাশি বিজয়ী প্রত্যেককে একটি করে সাইকেল পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণা করেন। ঘোষণার পর থেকে প্রায় শতাধিক কিশোর মসজিদে নিয়মিত জামায়াতের সহিত নামাজ আদায় শুরু করে।

সর্বশেষ গতকাল (১৭ জানুয়ারি) শুক্রবার জুমার নামাজের পর চূড়ান্ত বিজয়ী ২৭ কিশোরের হাতে তাদের কাঙ্ক্ষিত সেই পুরস্কারের বাইসাইকেল তুলে দেন মুফতি ইমদাদুল্লাহ কাসেমী।

এ ব্যাপারে বিজয়ীদের অনুভূতি জানাতে গিয়ে বলেন, আমরা এ উপহার পেয়ে অত্যন্ত আনন্দিত। এ উপহার আমাদেরকে নামাজের প্রতি অনুপ্রাণিত করেছে। তবে আমরা কোনো পুরস্কারের লোভে নয় বরং একমাত্র আল্লাহকে রাজী-খুশি করার জন্য নামাজ জামায়াতের সহিত আদায় করেছি। তারা যেন জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত সঠিকভাবে নামাজ আদায় করে যেতে পারেন সে জন্য সকলের দোয়া চেয়েছেন।

পুরস্কারের ঘোষক মুফতি ইমদাদুল্লাহ কাসেমী বলেন, ঘোষণার পর থেকে প্রায় শতাধিক কিশোর মসজিদে নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামায়াতের সহিত আদায় করা শুরু করে। তারা  ঠিকমতো নামাজ আদায় করছে কিনা তা লিপিবদ্ধ রাখার জন্য প্রতি ওয়াক্ত নামাজে হাজিরা নেওয়া হতো। যদি কেউ কোনো ওয়াক্ত উপস্থিত না থাকতো তখন তার গণনা বন্ধ করে দেওয়া হতো। তবে সে চাইলে তার নাম আবার লিখিয়ে তার নামাজের দিন গণনা শুরু করতে পারতেন। এভাবেই নিয়মিত প্রতি ওয়াক্ত নামাজের হাজিরার ভিত্তিতে সর্বশেষ ২৭ জন বিজয়ী হয়েছেন।

এই কদিনে তাদের শুধু নামাজই পড়ানো হয়নি। বরং সঠিকভাবে নামাজ শিক্ষা ও নামাজ সম্পর্কে জরুরী মাসলা-মাসায়েল শিখানো হতো এবং সেই সাথে তালিম-তরবিয়ত, নামাজের প্রতি মানুষকে আহবানের পাশাপাশি দ্বীনি ইসলাম সম্পর্কে শিক্ষা দেওয়া হতো বলে ও জানান তিনি।

স্থানীয়রা ইমাম সাহেবের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, হুজুরের এ কার্যক্রম আমাদের বাচ্চাদের নামাজের প্রতি আগ্রহী করে তুলেছে। আমরা বিষয়টি প্রায় কিছুদিন ধরে লক্ষ্য করছি যে আমাদের ছেলেরা নামাজে নিয়মিত আসছে। তাদের পদচারণায় মসজিদ সব সময় মুখরিত হয়ে থাকতো। মুফতি ইমদাদুল্লাহ কাসেমীর নেক হায়াত কামনা করে যুবসমাজকে নামাজে উদ্বুদ্ধ করে মসজিদমুখী করতে মসজিদের ইমামদের পাশাপাশি সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তারা।

পূর্ববর্তি সংবাদশিক্ষার্থীদের পাকিস্তানে চলে যাওয়ার হুমকি ভারতীয় শিক্ষকের
পরবর্তি সংবাদকেউ ভিন্ন মত প্রকাশ করলেই তাকে স্তব্ধ করে দিচ্ছে সরকার: মির্জা ফখরুল