সৌদি-অনুমোদিত হিব্রু ভাষায় কুরআনের অনুবাদ, তিন শতাধিক ‘ভুলে’র অভিযোগ

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: সম্প্রতি সৌদি আরব কর্তৃক অনুমোদিত হিব্রু ভাষায় কোরআনের অনুবাদে তিন শতাধিক ‘ভুলে’র অভিযোগ উঠেছে।

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলকে দখলদারিত্বের বৈধতা প্রদানের জন্যই সৌদি আরব এমন অনুবাদ করেছে বলে দাবি করেছে মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক ব্রিটিশ পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা মিডল ইস্ট মনিটর।

মিডল ইস্ট মনিটরের এক সংবাদে বলা হয়, হিব্রু ভাষায় অনুবাদ হওয়া কোরআনে তিন শতাধিক জায়গায় ‘ভুল’ রয়েছে।  এ ছাড়া  বেশ কয়েক জায়গায় কোরআনের অনেক অর্থ ‘চেপে যাওয়া হয়েছে’ বলেও প্রতিবেদনটিতে দাবি করা হয়েছে।

সংস্থাটি আরও দাবি করছে, ফিলিস্তিনে ইসরায়েলকে দখলদারিত্বের বৈধতা প্রদানের জন্যই সৌদি আরব এমন অনুবাদ করেছে।  এ অনুবাদে ইসরায়েল কোরআনের সমর্থন পাবে।

শুধু তাই নয়, পবিত্র কোরআনের এ অনুবাদে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.)’র নাম উল্লেখ করা থেকে বিরত থাকা হয়েছে বলেও জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক ব্রিটিশ পর্যবেক্ষণকারী এই সংস্থাটি।

অনুবাদটিতে পবিত্র মেরাজের তথ্যও বিকৃতি করা হয়েছে। মেরাজে হযরত মুহাম্মদ (স.) মক্কা থেকে আল-আকসা মসজিদে যান যে বিষয়টিকে উহ্য রাখা হয়েছে। পবিত্র কোরআনের এ অনুবাদে আল-আকসা মসজিদকে ইহুদিদের গির্জা বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইসলাম ধর্মের তৃতীয় পবিত্রতম মসজিদ আল আকসা মুসলিমদের কাছে আল হারাম আল শরিফ এবং বাইতুল মুকাদ্দাস নামেও পরিচিত। এটি ইহুদিদের কাছে টেম্পল মাউন্ট হিসেবে পরিচিত।

পূর্ববর্তি সংবাদআওয়ামী লীগের ভোট সুরক্ষা জন্য ইসি নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে : আমীর খসরু
পরবর্তি সংবাদকারওয়ানবাজারে তাবিথের নির্বাচনী প্রচারে হামলা, রিজভীসহ আহত ৬