করোনার চিকিৎসা কেন্দ্র হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতাল

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালকে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা কেন্দ্র করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার  (১৬ এপ্রিল) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংক্রান্ত জেলা কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত  হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় দ্রুত এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশিষ্টরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ একরাম উল্লাহ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. শওকত হোসেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান ডা. আবু সাঈদ প্রমুখ।

সভায় বলা হয়, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন পেলেই এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। অনুমোদন পাওয়ার পর থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে শুধু করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা দেওয়া হবে। বিকল্প চিকিৎসা কেন্দ্র হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের কার্যক্রম শহরতলীর ঘাটুরায় অবস্থিত ব্যক্তিমালিকানাধীন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করা হবে।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান ডা. মো. আবু সাঈদ বলেন, ‘স্বাস্থ্যমন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালটিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা কেন্দ্র করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। এ জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের কার্যক্রম ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরের ব্যাপারে আমাকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। দেশ ও মানুষের স্বার্থে সব দিক বিবেচনা করে আমার আর্থিক ক্ষতি হবে জেনেও এই প্রস্তাবে রাজি হয়েছি।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ একরাম উল্লাহ বলেন, ‘জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী বাড়ছে। সেজন্য বড় একটি হাসপাতালকে করোনা ভাইরাসের চিকিৎসা কেন্দ্র করার জন্য আমাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘ছোট-খাটো ক্লিনিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের কার্যক্রম স্থানান্তর সম্ভব নয়, সেজন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালটিকে নির্ধারণ করা হয়েছে। আমাদের বৈঠকের সিদ্ধান্তের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানোর পর অনুমোদন পেলে কার্যকর হবে।’

সিভিল সার্জন জানান, বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া এক শিশুসহ আরও তিনজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬ জনে। এদের মধ্যে তিন জন মারা গেছেন। আক্রান্তদের মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বক্ষব্যাধি হাসপাতালের আইসোলেশনে আছেন ৯ জন, বিজয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছেন ২১ জন এবং হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫৮৫ জন।

পূর্ববর্তি সংবাদগোটা বাংলাদেশকে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
পরবর্তি সংবাদরাজধানীর যেসব এলাকা করোনার ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে আইইডিসিআর