শিশুদের শিষ্টাচার শিক্ষা নিয়ে জুনায়েদ জামশেদের ভিডিও ভাইরাল

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: সম্প্রতি পাকিস্তানের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উপমহাদেশের ইসলামি সংগীত জগতের জনপ্রিয় মুখ জুনায়েত জামশেদের একটি পুরাতন ভিডিও নতুন করে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওটি পাকিস্তানের প্রসিদ্ধ মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সানিয়া সাঈদকে দেওয়া জুনায়েদ জামশেদের একটি সাক্ষাতকার। যেখানে তিনি শিশুদের লালন-পালন ও শিষ্টাচারের ব্যাপারে নিজের দৃষ্টিভঙ্গি উপস্থাপন করেছেন।

সাক্ষাৎকারে জুনায়েত জামশেদ বলেন, শৈশবে আমি খুব দুষ্টু ছিলাম, তবে তাকে অভদ্রতা বলা যায় না।

তার মতে বাচ্চারা দুষ্টামি অবশ্যই করবে, এটা তাদের স্বভাবজাত, কিন্তু বাচ্চাদের থেকে বেয়াদবি কাম্য নয়। তিনি বলেন ,ছোট বড়র মাঝে আদব রক্ষার্থে বাবা মাকে শিশুর প্রতি অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে।

‘আমরা কখনো বাবা মায়ের সাথে উঁচু আওয়াজে কথা বলিনি। আর বাবা মায়ের চোখে চোখ রেখে কথা বলা এমনটা ভাবতেও পারতাম না আমরা’ সাক্ষাতকারে জুনায়েত জামশেদের ভাষ্য ছিল এমনই।

ভাইরাল হওয়া সাক্ষাৎকারটিতে জুনায়েত জামশেদকে বলতে শোনা গেছে, সন্তান যত বড়ই হোক বাবা মা তাকে নিজ হাতে খাইয়ে দিতে ভালবাসেন, এতে তারা প্রশান্তি অনুভব করেন। আবহমানকাল ধরে আমাদের সামাজিকতা এ শিক্ষায় দিয়ে আসছে আমাদের। হৃদ্যতা ও ভালবাসার এই সংস্কৃতি ছেড়ে অন্য কোন সভ্যতাকে ধারণ করে মর্ডাণ হতে চাইলে আমাদের অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে যাবে।

মায়ের সাথে নিজের মধুর সম্পর্কের ব্যাপারে জানাতে গিয়ে জুনায়েত জামশেদ বলেছিলেন, মায়ের সাথে খাবার খাওয়া এটা আমার সব সময়ের অভ্যাস। বিয়ে পরে আমার স্ত্রীও এব্যাপারে আমাকে সাহায্য করেছে । কখনো  বলেনি , ‘তুমি কেন এখনো মায়ের সাথে খেতে বসো।

নিজের স্ত্রী সম্পর্কে জুনায়েত জামমেদ বলেন, আমার স্ত্রী আয়শা অনেক ধৈর্যশীল ও সাহসী নারী। আমার কঠিন সময়ে পদে পদে তার সহায়তায় আমি পথ চলার অনুপ্রেরণা পেয়েছি, বিপদ সংকুল পথে সাহসী সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছি।

নিজের মা ও স্ত্রীর ব্যাপারে জুনায়েত জামশেদের মন্তব্য হলো, তাদের মাঝে মা-মেয়ের সম্পর্ক ছিল। একজন আরেকজনকে ছাড়া থাকতে পারতো না।

জুনায়েত জামমেদ আরো বলেন, বাবা মায়ের সাথে ভাল মন্দ ব্যবহারের ফলাফল আল্লাহ তায়ালা দুনিয়াতেই দেন। তাই আমি সব সময় আমার স্ত্রীকে বলি, বাবা মায়ের সাথে ভুলেও কোন বেয়াদবি যেন না হয়, যা আল্লাহ তায়ালার অসন্তুষ্টির কারণ হয়ে দেখা দেয়, এ ব্যাপারে সজাগ থাকবে। কারণ আমরাও বাবা মা, আমাদেরও সন্তান আছে।

উল্লেখ্য, চার বছর আগে ২০১৬ সালের ৭ ডিসেম্বর বিমান দুর্ঘটনায় সস্ত্রীক শহিদ হন উপমহাদেশের ইসলামী অঙ্গনের কিংবদন্তী জুনায়েত জামশেদ।

ডেইলি জং অবলম্বনে:  রায়হান মুহাম্মদ

পূর্ববর্তি সংবাদরংপুরে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন ৮০ বছরের বৃদ্ধ
পরবর্তি সংবাদনারায়ণগঞ্জে র‌্যাবের ৩৯ জন আইসোলেশনে, করোনা পজেটিভ ১৭ জনের