শরীরে করোনার জীবাণু আছে আশঙ্কায় মাকে রেখেছে ঘরের বাইরে,খাবার চাইলেই মারধর

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: শরীরে করোনাভাইরাসের জীবাণু আছে এমন আশঙ্কায় ৯৫ বছর বয়সী বৃদ্ধা মাকে গত দুই মাস ধরে ঘরের বাইরে রাখছে ছেলে জগদীশ বেপারী ও পুত্রবধূর শিখা রানী। এছাড়াও খাবার চাইলে হাঁটাচলা করার সামর্থ নাই, শারীরিকভাবেও অসুস্থ, এমন এক বৃদ্ধা মায়ের ওপর শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন মা গেনোদা বেপারী।

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার বারপাইকা গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা যায়।

হাঁটাচলা করার সামর্থ নাই, শারীরিকভাবেও অসুস্থ, এমন এক বৃদ্ধা মাকে আগলে রাখার বদলে ঘর থেকে বের করে মায়ের ওপর ছেলে ও ছেলেবউ নির্যাতন করে এমন অভিযোগ পেয়ে মঙ্গলবার (১৬ জুন) ওই বাড়িতে যান স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিক। এসময় বৃদ্ধা তাদের কাছে অভিযোগ করেন, খাবার চাওয়ার অপরাধে ছেলে ও তার বউ তাকে শারীরিক নির্যাতন করেছে।

গেনেদা ওই এলাকার প্রয়াত সূর্য্যকান্ত বেপারীর স্ত্রী।

ওই গ্রামের বাসিন্দারা জানান, বৃদ্ধা গেনোদা বেপারীর শরীরে করোনাভাইরাসের জীবানু আছে এমন আশঙ্কা করে গত দু’মাস ধরে তাকে ঘরে না রেখে ঘরের বাইরে মন্দিরের সামনে রেখেছে তার ছেলে ও ছেলে বউ।

বৃদ্ধা জানান, গত সোমবার দুপুরে খাবার চেয়ে না পেয়ে তার নিজের নামে উত্তোলন করা বয়স্ক ভাতার টাকা চান ছেলের কাছে। এতে তার ছেলে জগদীশ ও ছেলের স্ত্রী শিখা ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করে।

প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয়রা জানান, নির্যাতনের সময় বৃদ্ধার চিৎকারে তারা এগিয়ে গেলে জগদীশের স্ত্রী শিখা রানী তাদের অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে এবং বিষয়টি কাউকে জানালে মামলা করার হুমকি দেয়।

জানতে চাইলে অভিযুক্ত জগদীশ বেপারী বলেন, বিষয়টি তাদের পারিবারিক। এখানে কাউকে নাক গলাতে হবে না। এসময়  স্থানীয় সাংবাদিকরা এ বিষয়টি নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করছে এমন মন্তব্যও করেন তিনি।

বৃদ্ধাকে শারীরিক নির্যাতনের খবর পেয়ে তার জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রী, ওষুধ এবং খাদ্য সহায়তা পাঠিয়েছেন আগৈলঝাড়া থানার ওসি আফজাল হোসেন। একইসঙ্গে অভিযুক্ত ছেলে ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন ওসি।

আগৈলঝাড়া থানার ওসি জানান, সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক বৃদ্ধাকে নির্যাতনের ছবি দেখে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছেন। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরও জানান, অনাহারি ওই বৃদ্ধার জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য ও ওষুধ সামগ্রী এবং কিছু ফল কিনে পাঠিয়েছেন।

জানতে চাইলে আগৈলঝাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাত বলেন, এ বিষয়ে কিছুই জানেন না তিনি। খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

পূর্ববর্তি সংবাদ৬ প্রতিষ্ঠানের ৮টি পণ্যের লাইসেন্স বাতিল করলো বিএসটিআই
পরবর্তি সংবাদ৩ জন নয়, চীনের সঙ্গে সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় সেনা নিহত