গ্রাহকের টাকা নিয়ে পালানো এনজিওর কর্নধার কারাগারে

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: নাটোর ও রাজশাহীর বিভিন্ন এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালানো কামরুল ইসলাম নামে এক এনজিওর কর্নধারকে গ্রেফতারের পর কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

সোমবার (১৫ জুন) সন্ধ্যার কিছু আগে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম ও মামলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) শামসুজ্জোহা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এসআই শামসুজ্জোহা জানান, গত ১৪ জুন ভুক্তভোগী রাজিব আলী এ ঘটনায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় কামরুল, তার জামাতা ও বাবাসহ পাঁচজনকে আসামি করা হয়। ওই রাতেই কামরুলের জামাতা ও বাবাকে গ্রেফতার করা হয়। সোমবার বিকালে কামরুলকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তাকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ ঘটনায় আসামিদের বিরুদ্ধে রিমান্ড আবেদনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, ছাতনী ইউনিয়নের মাঝদিঘা পূর্বপাড়া ওলি প্রামাণিকের ছেলে কামরুল ইসলাম দীর্ঘ প্রায় আট বছর আগে ছোট পরিসরে এনজিওর কার্যক্রম শুরু করে আসলেও এর ব্যাপ্তি ঘটে ছয় বছর থেকে। তার এনজিওর নাম ‘হেলপ সোসাইটি’ ও ‘বর্ষা সমবায় সমিতি’। এই এনজিওর কার্যক্রম বিস্তৃত হয় রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার মোল্লাপাড়া, ঝলমলিয়া এবং নাটোর সদর উপজেলার ছাতনী ইউনিয়নের মাঝদিঘা পর্যন্ত। এছাড়া এর বাইরে মাঝদিঘা এলাকায় তিনি গড়ে তোলেন একটি কৃষি পার্ক। এনজিওতে সদস্যরা বিভিন্ন পরিমাণ টাকা ডিপোজিট করেন। গত ১০ জুন হঠাৎ লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে যান কামরুল। পরদিন থেকে কামরুলের বাড়ি ও অফিসে ভুক্তভোগীরা টাকা ফিরে পেতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করতে থাকেন। এ ব্যাপারে পুঠিয়া ও সদর থানায় মামলার সূত্র ধরে অবশেষে মূল আসামি গ্রেফতার হয়। গ্রাহকরা তাদের খোয়া যাওয়া টাকা ফেরতের পাশাপাশি কামরুলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।

ওসি জাহাঙ্গীর আলম জানান, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পূর্ববর্তি সংবাদমজলিসে শূরার বৈঠক: হাটহাজারীর সহকারী পরিচালক নিযুক্ত হলেন আল্লামা শেখ আহমদ
পরবর্তি সংবাদবান্দরবানে সীমান্তপথে পাচারের সময় সাড়ে ৩ কোটি টাকার ইয়াবা উদ্ধার