দেশে ১৮ দিনে করোনা টেস্ট কমে প্রায় অর্ধেক

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: বেশ কিছুদিন ধরে দেশে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার সংখ্যায় নিম্নগতি লক্ষ্য করা গেছে। গত আঠারো দিনে দৈনিক টেস্ট সংখ্যা কমে প্রায় অর্ধেকে ঠেকেছে। উদ্বেগের ব্যাপার হলো, টেস্ট কমলেও শনাক্ত হার ঊর্ধ্বমুখী।

করোনা নিয়ে শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সবশেষ বুলেটিনে বলা হয়, এদিন সকাল আটটা পর্যন্ত দেশে কভিড-১৯ নমুনা টেস্ট করা হয়েছে ১০ হাজার ৩২৩টি, যা গত ১৮ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন। সবশেষ নমুনা পরীক্ষায় করোনার সংক্রমণ পাওয়া গেছে ২ হাজার ৭০৯ জনের শরীরে, শতকরা হার প্রায় ২৫ শতাংশ।

গত ৩০ জুন দেশে নমুনা টেস্ট করা হয়েছিল ১৮ হাজার ৪২৬টি, ওই দিন শনাক্তের সংখ্যা ছিল ৩ হাজার ৩৮২ জন, শনাক্তের হার ছিল ২০ শতাংশ।

করোনা বিস্তার রোধে যখন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বিশেষজ্ঞরা বেশি বেশি নমুনা টেস্টের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে, বাংলাদেশে তখন উল্টো চিত্র।

অধিকাংশ দেশের মতো বাংলাদেশও বিনা মূল্যে করোনার নমুনা পরীক্ষা শুরু করলেও গত মাসের শেষ দিকে ফি নির্ধারণ করে দেয় সরকার। বেধে দেওয়া মূল্য অনুযায়ী, বাসায় নমুনা টেস্ট করালে ৫০০ টাকা, হাসপাতালে করালে ২০০ টাকা গুনতে হবে।

ফি নির্ধারণ, রিপোর্ট পাওয়ায় দীর্ঘসূত্রতা এবং সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ভুয়া টেস্ট রিপোর্ট কেলেঙ্কারি ইত্যাদি কারণে টেস্ট করানো নিয়ে আগ্রহই হারিয়ে ফেলছেন নাগরিকেরা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, শুরুতে দেশে পরীক্ষা হয়েছে খুবই কম। মার্চে প্রথম করোনা শনাক্তের মাসে দিনে গড়ে ৫০টিরও কম নমুনা টেস্ট হয়েছে।

এপ্রিল মাসে গড়ে প্রতিদিন পরীক্ষা হয়েছে ২,১০২টি, মে মাসে এ সংখ্যা বেড়ে ৭,৮৭৯টি এবং জুনে গড়ে দৈনিক ১৫,২৫১টি পরীক্ষা হয়েছে।

জুন মাসে একদিনে সর্বোচ্চ সাড়ে আঠারো হাজার পরীক্ষারও করা হয়েছে। অথচ জুলাই মাসে পরীক্ষার সংখ্যা কমে গেছে দৈনিক প্রায় এক হাজার।

জুলাই মাসের প্রথম দুই সপ্তাহে গড়ে ১৪,২৮০টি নমুনা পরীক্ষা হলেও পরের দিনগুলোতে টেস্ট কমেছে উল্লেখযোগ্য হারে। সবশেষ একদিনে সংখ্যাটা ১০ হাজারের ঘরে গিয়ে ঠেকেছে।

জুলাই মাসে টেস্ট কমলেও সংক্রমণের হার প্রায় ২৫ শতাংশের কাছাকাছি উঠেছে। কোনো দিন ২৫ শতাংশও ছাড়িয়ে যাচ্ছে। অর্থাৎ ইদানীং ৪-৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করলে একজনের দেহে ভাইরাস পাওয়া যাচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সবশেষ হিসেব অনুযায়ী, দেশে বর্তমানে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ২ হাজার ৬৬ জন।

এর মধ্যে চব্বিশ ঘণ্টায় নতুন ৩৪ জনসহ মোট মৃত্যু দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৫৮১ জন; আর নতুন ১ হাজার ৩৭৩ জনসহ মোট করোনাজয়ীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৯৮ জন।

সুস্থ ও মৃত্যু বাদ দিলে দেশে ‘অ্যাকটিভ’ করোনারোগী আছে ৮৯ হাজার ৩৮৭ জন।

পূর্ববর্তি সংবাদএক কোটি ইয়াবা লুটের প্রধান হোতা আটক
পরবর্তি সংবাদফজিলতে পূর্ণ জিলহজের প্রথম দশক