যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন: ফলাফল ঘোষণার আগেই চলছে নাটকীয়তা

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: ভোট গ্রহণ শেষ। গণনা এখনো শেষ হয়নি। এখনো আনুষ্ঠানিক কোনো ঘোষণাও আসেনি। কিন্তু তার আগেই যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল নিয়ে শুরু হয়েছে নাটকীয় আচরণ।

আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণার আগেই জো বাইডেন সমর্থকরা হোয়াইট হাউজের সামনে নাচ-গানে আনন্দ উল্লাস করছেন। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মিছিল হচ্ছে।

অন্যদিকে ট্রাম্প নিজেকে নিজেই বিজয়ী ঘোষণা করেছেন। আদালতে যাবার হুমকিকে বাস্তবে পরিণত করার ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি। সংঘাতের শঙ্কায় বন্ধ হয়ে যাচ্ছে মার্কেটগুলো।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল নিয়ে এমন নাটকীয়তা অভূতপূর্ব। ৭টি রাজ্যে ভোট গণনা বাকি থাকতেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজেকে বিজয়ী ঘোষণা করেছেন। বাকি রাজ্যগুলোর ভোট গণনা বন্ধ করতে তিনি আদালতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। কোনো প্রমাণ উপস্থাপন না করেই তিনি ভোটে জালিয়াতির অভিযোগ তুলেছেন। দাবি তুলেছেন, ‘আমরাই বিজয়ী হয়েছি’। অথচ এখনও লাখ লাখ ভোট গণনার বাকি।

ফলে নির্বাচন নিয়ে আইনি জটিলতা তৈরি হতে পারে। ৩রা নভেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণাও বিলম্বিত হতে পারে।

নির্বাচনের আগেই ট্রাম্প ঘোষণা দিয়েছিলেন ভোট গণনায় বিলম্ব হলে তিনি আদালতের আশ্রয় নিতে পারেন। এ জন্য তিনি সুপ্রিম কোর্টেও যেতে পারেন। এর প্রেক্ষিতে রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেট উভয় শিবিরই আইনি প্রস্তুতি শুরু করে।

হোয়াইট হাউজের ইস্ট রুম থেকে ট্রাম্প বলেন, কোটি কোটি মানুষ আমাদেরকে ভোট দিয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত খারাপ মানুষদের একটি গ্রুপ তার সমর্থকদের বঞ্চিত করার চেষ্টা করছে। তিনি আরো জানান, মঙ্গলবার রাতের প্রথম দিকেই তিনি নিজের বিজয় ঘোষণার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। তার ভাষায়, আমরা এক বড় সেলিব্রেশনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। আমরা সব জায়গা, সবকিছুতে জিতেছি। তিনি ভোট গণনায় বাকি থাকা ৭টি রাজ্যের দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, আকস্মিকভাবে সেখানে ভোট গণনা বন্ধ রাখা হয়েছে। এসব স্থানে জালিয়াতি হচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। ট্রাম্প উল্লেখ করেন, ওই সাতটি রাজ্যে ভোট গণনায় তিনি এগিয়ে ছিলেন। এসব রাজ্যে তাকে বিজয়ী ঘোষণা করা উচিত।

ট্রাম্পের ভাষায়, এটা মার্কিন নাগরিকদের সঙ্গে জালিয়াতি। এ ঘটনা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য বিব্রতকর। ৭টি রাজ্যে কয়েক লাখ ভোট গণনার বাকি থাকতেই তিনি বলেন, মন খুলে বলছি, আমরাই জিতেছি। এসব ভোট বন্ধ রাখতে আমি সুপ্রিম কোর্টে যাবো।

এদিকে সম্ভাব্য সংঘাতের আশঙ্কায় বহু শহরে দোকানপাট বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। নাগরিকদের মধ্যেও ভীতির সঞ্চার হয়েছে। বিশ্বের বৃহত্তর গণতান্ত্রিক দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে নির্বাচন নিয়ে এমন অনিশ্চয়তা আগে কখনোই দেখা যায় নি। পুরো পরিস্থিতিতেই ভর করেছে অজানা ভয়ের আবহ। কোথাও কোথায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে। রিপবালিকান শিবিরও পাল্টা প্রতিবাদের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

শুধু মার্কিন নাগরিকগণই নন, পুরো বিশ্বই উদ্বিগ্ন চোখে তাকিয়ে আছে দ্রুত পরিবর্তনশীল ও নাজুক যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন-পরবর্তী পরিস্থিতির দিকে। করোনায় মারাত্মকভাবে আক্রান্ত বিশ্বের শক্তিশালী দেশের নাজুক রাজনৈতিক পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে ঠেকে, সেটাই এখন সবার মনোযোগের বিষয়।

পূর্ববর্তি সংবাদনৌ বাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর: রিমান্ড শেষে কারাগারে দেহরক্ষীসহ ইরফান সেলিম
পরবর্তি সংবাদকক্সবাজারে পিকআপ থেকে ১৭ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার