হেফাজতের বিরুদ্ধে রাম-বামদের উস্কানি সহ্য করা হবে না: মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: গতকাল শনিবার চট্টগ্রাম’সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে উগ্র কর্মীদের হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, আলেম-উলামা ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে উস্কানীমূলক শ্লোগানের কড়া সমালোচনা করে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী।

রবিবার (৮ নভেম্বর)  গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে মাওলানা বাবুনগরী বলেন, ‘হেফাজতে ইসলাম দেশের সর্ববৃহৎ অরাজনৈতিক ঈমান-আকিদা ভিত্তিক সংগঠন। লক্ষ কোটি মুমিন মুসলমানের প্রাণের সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। হেফাজতকে নিয়ে উস্কানিমূলক সন্ত্রাসী শ্লোগান দিয়ে চরম ধৃষ্টতা দেখিয়েছে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। হেফাজতকে নিয়ে কোন রাম বামদের উস্কানি আর আস্ফালন সহ্য করা হবে না ‘

হেফাজত মহাসচিব বলেন, ‘ক’দিন আগে শাহবাগে বাম সংগঠনসমূহের অনুষ্ঠিত একটি সমাবেশ শেষে ‘প্রগতিশীল গণসংগঠনসমূহ’ ব্যানারে উদীচী, ছাত্র ইউনিয়ন, যুব ইউনিয়নসহ কিছু সংগঠনের নেতাকর্মীদের একটি মশাল মিছিল শহীদ মিনারে যাওয়ার পথে ‘হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ’-এর বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়ানোর উদ্দেশ্যে বিদ্বেষ ও উস্কানীমূলক শ্লোগান দিয়েছিল। দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় সরকারের কর্তব্য, এসব উগ্রপন্থী সংগঠনের বিরুদ্ধে যথাযথ কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা।’

মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ‘হেফাজতে ইসলাম বৃহত্তর অরাজনৈতিক ধর্মীয় সংগঠন। ইসলাম, মুসলমান, দেশ ও জাতীর কল্যাণে সংগঠনটি শান্তিপূর্ণভাবে কাজ করে যাচ্ছে। হেফাজতকে নিয়ে বাম রামদের আস্ফালনের আড়ালে ইসলাম ও দেশবিরোধী গভীর ষড়যন্ত্র নিহীত বলে মনে করি। কোন আধিপত্যবাদি শক্তির হয়ে দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব এবং ইসলাম ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে কোন ধরনের ষড়যন্ত্র দেশবাসী সফল হতে দিবে না।’

হেফাজত মহাসচিব বলেন, ‘পৃথিবীর বুকে ইসলাম একমাত্র শান্তির ধর্ম। হযরত মুহাম্মদ (সা.) বিশ্ববাসীর জন্য শান্তির বার্তাবাহক হিসেবে প্রেরিত হয়েছেন। হাদীস শরীফে রাসুল (সা.) সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তার বিধান বর্ণনা করেছেন। সংখ্যালঘুদের জান, মাল ও ইজ্জত- আব্রু রক্ষার আদেশ দিয়েছেন। কেবলমাত্র শান্তিরধর্ম ইসলামই সংখ্যালঘুদের সার্বিক নিরাপত্তা এবং সুখ-সমৃদ্ধি নিশ্চিত করেছে। বাংলাদেশে সকল ধর্মের মানুষের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত রয়েছে। মুসলমানরা কখনো হিন্দু ও সংখ্যালঘুদের উপর হামলা করেনি। হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, জাগো হিন্দু পরিষদ এসব উস্কানিমূলক শ্লোগান দিয়ে দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি করে আধিপত্যবাদি শক্তির ছত্রছায়ায় হিন্দুত্ববাদ প্রতিষ্ঠা করতে চায়। হেফাজত মহাসচিব বলেন, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ বাংলাদেশের জন্য চরম হুমকি। এই সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহা বাংলাদেশ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে ভুল তথ্য প্রকাশ এবং বানোয়াট ও ডাহা মিথ্যা অভিযোগ করে রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুন্ন করেছিল। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নকারী এ উগ্র সংগঠন আবারো মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে চাচ্ছে। দেশে অরাজকতা সৃষ্টির পায়তারা করছে। সরকারকে এদের বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।’

এস এন

পূর্ববর্তি সংবাদজম্মু-কাশ্মীরে গোলাগুলি, ৪ ভারতীয় সেনা ও ৩ স্বাধীনতাকামী নিহত
পরবর্তি সংবাদমার্কিন নির্বাচনের বছরখানেক আগে ট্রাম্পের নামে জয়ধ্বনি দিয়ে মোদী কি এখন বিড়ম্বনায় ?