বাংলাদেশিদের জন্যও খোলা হচ্ছে ওমরাহর দরজা, তবে খরচ দ্বিগুণ

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে সীমিত আকারে ওমরাহ পালনের অনুমতি দিয়েছে সৌদি সরকার। গত ৪ অক্টোবর শুধু সৌদি নাগরিকরা ওমরাহ করার সুযোগ পান। এরপর গত ১ নভেম্বর থেকে বিদেশীদের জন্য ওমরাহ পালনের সুযোগ দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন দেশের যাত্রীরা ইতোমধ্যেই ওমরাহ পালনের জন্য সৌদি আরব গেলেও বাংলাদেশ থেকে এখনো ওমরাহর কার্যক্রম শুরু হয়নি। ধর্ম মন্ত্রণালয় ওমরাহ কার্যক্রম শুরু করতে বৈধ এজেন্সির তালিকা করার জন্য আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে। এর মধ্যে আগ্রহী এজেন্সিগুলোকে আবেদন করতে বলা হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের তালিকা প্রকাশের পর এজেন্সিগুলো ওমরাহ কার্যক্রম শুরু করতে পারবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন এজেন্সি মালিকরা।

এজেন্সি মালিক মাহবুব হোসেন জানান, গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার ওমরায় খরচ দ্বিগুণ হবে। গত তিন-চার বছর বাংলাদেশ থেকে ওমরাহর জন্য সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা খরচ হতো। এবার সেখানে সর্বনিম্ন দুই লাখ টাকা লাগবে। এয়ারলাইন্সের ভাড়া বৃদ্ধি, ভিসা প্রসেসিং, সৌদি আরবে আবাসিক খরচ, সামাজিক দূরত্ব মানা, বাসে যাত্রী কম থাকাসহ বিভিন্ন কারণে এ খরচ বাড়বে। এ কারণে এবার ওমরায় যাওয়ার আগ্রহ কম দেখা যাচ্ছে বলেও তিনি জানান।

এজেন্সির মালিকরা আরো জানান, করোনার এই বিশেষ পরিস্থিতির কারণে এবার ওমরাহ পালনে বিভিন্ন নিয়মকানুন পালন করতে হবে। বিগত সময়ে বাংলাদেশ থেকে যেসব ধর্মপ্রাণ মুসলিম ওমরাহ করতে যান তারা সৌদি আরবে পৌঁছেই ওমরাহ পালন করেন। তা ছাড়া যত দিন মক্কায় অবস্থান করেন তত দিনই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কাবা শরিফে গিয়ে পড়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন। কিন্তু শর্তের কারণে এবার তা করতে পারবেন না।

সৌদি সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী করোনাকালীন বিশেষ পরিস্থিতিতে সব বয়সের মানুষ এখন ওমরাহ পালন করতে যেতে পারবেন না। এবার শুধু ২৫ থেকে ৫০ বছর বয়সীরাই ওমরাহ পালনে যেতে পারবেন। সৌদি আরবে গিয়েই তাদেরকে তিন দিন অর্থাৎ ৭২ ঘণ্টা কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। নির্দিষ্ট অ্যাপসের মাধ্যমে তাদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ ও শারীরিক অবস্থা পর্যালোচনা করে ওমরাহ পালনে অনুমতি প্রদান করা হবে। হোটেলের একটি কক্ষে দু’জনের বেশি যাত্রী রাখা যাবে না। ওমরাহ প্যাকেজের আওতায় খাবারের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে।

হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, ওমরাহ পালনে এবার খরচের পরিমাণ প্রায় দ্বিগুণ বাড়বে। এজেন্সিগুলো ওমরাহ যাত্রী পাঠানোর জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি শুরু করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, শিগগিরই বাংলাদেশ থেকে ওমরাহ যাত্রী যাওয়া শুরু হবে, তবে কবে থেকে শুরু হবে এখনই বলা যাচ্ছে না।

ইজে

পূর্ববর্তি সংবাদইসলামী আদব : মুসলিম নারীর প্রধান ভূষণ
পরবর্তি সংবাদরাখাইন রাজ্যের বেশিরভাগ আসনে হেরেছে সু চির দল