বৌভাত অনুষ্ঠানে সংষর্ঘ: কনের বাবাসহ কারাগারে ৯

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: বৌভাত অনুষ্ঠানে মাংস নিয়ে মারামারিতে বরের চাচার মৃত্যুর ঘটনায় কনের বাবাসহ নয়জনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বুধবার (৬ জানুয়ারি) বরিশালের মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শামীম আহমেদ এ আদেশ দেন।

অভিযুক্তরা হলেন, কনের বাবা কাউনিয়া সাবান ফ্যাক্টরি এলাকার মৃত মোকছেদ হাওলাদারের ছেলে কালাম হাওলাদার, বরগুনা পাথরঘাটার ছনগুনিয়া এলাকার রবিন হাওলাদারের ছেলে উজ্জ্বল হাওলাদার, বরিশাল সদর উপজেলার চরকাউয়া এলাকার মৃত আব্দুস সাত্তার হাওলাদারের ছেলে আব্দুস ছালাম হাওলাদার, কালাম হাওলাদারের ভাই খোকন হাওলাদার ও রিপন হাওলাদার, বিসিসির কাউনিয়া ব্রাঞ্চ রোড এলাকার হারুন অর রশিদের ছেলে নাঈম হোসেন, চরকাউয়া এলাকার মৃত শাহজাহান হাওলাদারের ছেলে সোহেল হাওলাদার, সিদ্দিক ইসলামের ছেলে পারভেজ ইসলাম ও ফরিদ খানের ছেলে সাব্বির খান।

তাদের বিরুদ্ধে ৫ জানুয়ারি বিমানবন্দর থানায় মামলা দায়ের করেন নিহত আজাহার আলী মীরের (৬৫) ছেলে সুরুজ মীর।

অভিযোগে তিনি বলেন, বাবুগঞ্জ উপজেলার চাঁদপাশা ইউনিয়নের প্রত্যন্ত দক্ষিণ রফিয়াদী গ্রামে তার চাচাতো ভাই সজীব মীরের বাড়িতে ৫ জানুয়ারি দুপুরে সজীবের বৌভাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে খাবার পরিবেশনের সময় কনেপক্ষের একটি টেবিলে মাংস দিতে দেরি করায় বাদানুবাদের একপর্যায়ে খাবার পরিবেশনকারীর ওপর হামলা চালিয়ে প্লেট ও গ্লাস ভাঙচুর করে।

এসময় বরের চাচা বাদীর বাবা আজাহার আলী মীর তাদের বোঝাতে গেলে তাকে বেধড়ক মারধর শুরু করেন কনেপক্ষের অভিযুক্ত অতিথিরা। এসময় বরের চাচা আজাহার আলী মীর ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

পরে স্থানীয়রা হামলাকারীদের আটক করে পুলিশে দেন। অভিযুক্তদের হামলায় ডেকোরেশনের ১০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়। এ ধরনের অভিযোগ দেওয়া হলে পুলিশ আটক নয়জনকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করলে আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

-আরএম

পূর্ববর্তি সংবাদ৩ নেতার বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেনি পিবিআই, নতুন তারিখ ধার্য
পরবর্তি সংবাদরক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি