হায়দারাবাদের মিউজিয়ামে মহান শাসক বাদশাহ আলমগীর লিখিত কোরআন শরীফ

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: মোগল সাম্রাজ্যের ষষ্ঠ শাসক এবং শেষ মহান সম্রাট আওরঙ্গজেব আলমগীর রহ.-এর স্বহস্তে লেখা পবিত্র কুরআনের একটি অনুলিপি এখনও হায়দ্রাবাদের স্টেট মিউজিয়াম পাবলিক গার্ডেনে রয়েছে।

আওরঙ্গজেব আলমগীর রহ. নিজহাতে কুরআন মাজীদের অনুলিপি লিখে এবং টুপি সেলাই করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। বাদশাহ আলমগীর রহ. তাঁর জীবদ্দশায় পবিত্র কুরআনের প্রায় ১৫ টি কপি নিজের হাতে লিখেছিলেন। দক্ষিণের রাজ্যগুলিতে কোরআন মাজীদের একটি অনুলিপি এখনও তেলঙ্গানার হায়দরাবাদের স্টেট মিউজিয়াম পাবলিক গার্ডেনে বিদ্যমান রয়েছে।

এ যাদুঘরটিতে বহু দুর্লভ কোরআনের প্রাচীন পাণ্ডুলিপি রয়েছে। মোগল সম্রাট শাহজাহান এবং অন্যান্য রাজাদের সময়ের সিলমোহর অংকিত একাধিক কুরআনের পাণ্ডুলিপিও রয়েছে সেখানে।

উল্লেখ্য, হায়দারাবাদের ৭ম নিজাম মীর উসমান আলী খান বাহাদুর স্টেট জাদুঘরটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এই জাদুঘরে যেসব প্রাচীন নিদর্শন রয়েছে তা নিজাম মীর উসমান আলী খান সংগ্রহ করিয়েছিলেন।

এ সম্পর্কে হায়দরাবাদের প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ ড. মুহাম্মদ সাফিউল্লাহ ইটিভি ভারতকে বলেছেন যে, আওরঙ্গজেব আলমগীর রহ.-এর জীবনযাপন ছিল অতি সাধারণ। বাদশাহর যখন ইন্তেকাল হয়, তখন তার হাতে বোনা টুপি বিক্রয় থেকে প্রাপ্ত অর্থ দিয়ে বাদশাহ আলমগীরকে আওরঙ্গবাদে দাফন করা হয়েছিল।

এ ইতিহাসবিদ আরো বলেন, স্টেট যাদুঘরে আরো অনেক দুষ্প্রাপ্য জিনিস রয়েছে। কিন্তু এটির সংরক্ষণে নিরাপত্তার কোনো ব্যবস্থা নেই। এছাড়াও কর্মী সংখ্যাও খুব কম। এ যাদুঘরটি ভারতের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগের তত্ত্বাবধানে রয়েছে।

তিনি ভারতের প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগ এবং সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন, যাতে এ জাতীয় বিরল কুরআনের পাণ্ডুলিপি এবং অন্যান্য জিনিসের সুরক্ষার জন্য যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হোক। এটি সেই ঐতিহাসিক সম্পদ, যার সংরক্ষণ এবং নিরাপত্তা  জোরদার করা প্রয়োজন। আওরঙ্গজেব আলমগীর রহ.-এর সরলতা এবং তাঁর বিরুদ্ধে করা অভিযোগের মূলোৎপাটন করাও সময়ের দাবি।

আসরে হাযির নিউজ পোর্টাল থেকে ভাষান্তর: সাইফ নূর

-এমএসআই

পূর্ববর্তি সংবাদঅক্সফোর্ডের টিকা জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দিল বাংলাদেশ
পরবর্তি সংবাদএনজিওর কিস্তির টাকা পরিশোধ নিয়ে কথা কাটাকাটি, ছেলের হাতে মা খুন!