জুমার দিন আগে আগে মসজিদে যাওয়া: উট, গরু, দুম্বা কুরবানির সওয়াব

ওমায়ের আহসান ।। 

আজ শুক্রবার। মুসলমানদের সবচাইতে শ্রেষ্ঠ ও মর্যাদাপূর্ণ দিন। এই দিনের ফযিলত সম্পর্কে বিখ্যাত সাহাবি আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, সূর্য উদিত হওয়ার দিনগুলোর মধ্যে জুমার দিন সর্বোত্তম। এই দিনে আদম (আ.)-কে সৃষ্টি করা হয়াছে। এই দিনে তাঁকে জান্নাতে প্রবেশ করানো হয়েছে এবং এই দিনে তাঁকে জান্নাত থেকে বের করা হয়েছে। কেয়ামতও হবে এই জুমার দিনে। (মুসলিম, হাদিস : ৮৫৪; আবু দাউদ, হাদিস ১০৪৬)

জুমার দিন জুমার নামায পড়তে আগে আগে মসজিদ যাওয়ার ফযিলত অনেক। হাদীস শরীফে হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-

من اغتسل يوم الجمعة غسل الجنابة، ثم راح فكأنما قرب بدنة، ومن راح في الساعة الثانية فكأنما قرب بقرة، ومن راح في الساعة الثالثة فكانما قرب كبشاً أقرن، ومن راح في الساعة الرابعة فكأنما قرب دجاجة، ومن راح في الساعة الخامسة فكأنما قرب بيضة، فاذا خرج الإمام حضرت الملائكة يستمعون الذكر

অর্থ: যে ব্যক্তি জুমার দিন ফরয গোসল করলো। অতপর মসজিদে গেল, সে যেন একটি উট কুরবানি করল।

আর যে দ্বিতীয় মুহূর্তে গেল, সে যেন একটি গরু কুরবানি করল।

আর যে তৃতীয় মুহূর্তে  গেল, সে যেন একটি শিংওয়ালা দুম্বা কুরবানি করল।

আর যে চতুর্থ মুহূর্তে  গেল, সে যেন একটি মুরগি কুরবানি করলো।

আর যে পঞ্চম মুহূর্তে গেল, সে যেন একটি ডিম কুরবানি করলো।

অতপর যখন ইমাম সাহেব বের হয়ে আসেন তখন ফেরেশতাগণ জিকির শুনতে থাকেন।’ (বুখারি, হাদিস ৮৮১)

-এসএন