মালিবাগে গৃহপরিচারিকার হাতে পাশবিক নির্যাতনের শিকার বৃদ্ধ মা, অভিযুক্তকে ধরতে অভিযান

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: বয়স্ক মাকে দেখভালের জন্য রাখা হয়েছিল গৃহকর্মীকে । ভাইরাল হওয়া এক সিসিটিভি ভিডিওতে দেখা গেল, ওই বৃদ্ধাকে নগ্ন করে চরম নির্যাতন চালিয়েছে সেই গৃহকর্মী।

বৃদ্ধার পরিবারের সদস্যরা বলছেন, নির্যাতনের পর বাসার মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে পালিয়ে গেছে অভিযুক্ত গৃহকর্মী। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সকালে।

পুলিশ বলছে, মঙ্গলবার রাতে একটি মামলা হওয়ার পর থেকেই অভিযুক্ত গৃহকর্মীকে ধরতে অভিযান শুরু করা হয়। বুধবার এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

ঢাকার মালিবাগের একটি বহুতল ভবনের একটি ফ্লাটে ঘটেছে এই নির্মম ঘটনা। পুরো ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে।

ভিডিওতে দেখা গেছে, এক তরুণী এক বৃদ্ধাকে উলঙ্গ করে লাঠি দিয়ে ক্রমাগত আঘাত করছে। বৃদ্ধা আর্তনাদ করছেন এবং এক পর্যায়ে তার মাথা দিয়ে রক্তপাত শুরু হয়।

এক পর্যায়ে বৃদ্ধাকে দিয়ে আলমারি খুলিয়ে সেখান থেকে জিনিসপত্র নিয়ে জড়ো করতে দেখা যায় তাকে। নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, ইলেকট্রনিক জিনিসপত্র নিয়ে তাকে বাসা থেকে বেরিয়ে যেতেও দেখা যায়।

আহত বৃদ্ধার বয়স ৭৫, তার ছেলে গণমাধ্যমকে বলেন, ”এক বছর আগে মাসিক ছয় হাজার টাকা বেতনে মেয়েটিকে বাসায় কাজে রাখা হয়েছিল। তার দায়িত্ব ছিল আমার বয়সী মাকে সেবাযত্ন করা।”

তাদের একটি বাসায় ভাড়াটিয়া হিসাবে মেয়েটি এসেছিল। সেখান থেকে পরিচয়ের সূত্রে তাকে বাসার কাজে রাখা হয়।

”আমাদের একবোন গ্রামের বাড়িতে গিয়েছিল। আরেক বোন গিয়েছিল ব্যাংকের কাজে। এই সময় বাসা ফাঁকা পেয়ে সে প্রথমে আমার মাকে বাথরুমে নিয়ে গিয়ে গায়ে ঠাণ্ডা পানি ঢেলে আটকে রাখার চেষ্টা করে। যখন আমার মা বাথরুম থেকে বেরিয়ে আসে, তখন তার হাঁটাচলা করার স্টিলের লাঠিটি দিয়ে তাকে বেধড়ক মারধর করে আলমারি খুলতে বাধ্য করে।” বলছিলেন বৃদ্ধার ছেলে।

গৃহকর্মী যাওয়ার সময় বৃদ্ধাটিকে তালাবদ্ধ অবস্থায় ফেলে চলে যায়।

ছেলে বলছেন তিনি মায়ের ঠিক ওপরের তলাতেই থাকেন। পরে মায়ের চিৎকার শুনে ওপরের তলা থেকে নেমে এসে তালা ভেঙ্গে মাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেন।

তাকে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বৃদ্ধার ছেলে বলছেন, বাসার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে সবগুলো কক্ষে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছিল, যাতে ঘরের সব কিছু রেকর্ড হয়ে থাকে। তার বড়বোন মাঝে মাঝে সেগুলো তদারকি করতেন। সেই ক্যামেরায় পুরো ঘটনার ভিডিও হয়েছে।

ঢাকার বেসরকারি টিভি চ্যানেল টোয়েন্টি ফোরে এই ভিডিওটি প্রকাশ হওয়ার পর তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে।

চ্যানেল টোয়েন্টি ফোরের প্রতিবেদক রাশেদ নিজাম  বলছেন, ”একজন অপরাধ বিষয়ক প্রতিবেদক হিসাবে আমি অনেকবার অনেকরকম বীভৎস মৃতদেহের ছবি দেখেছি। কিন্তু এই ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজে যে ভয়াবহতা ফুটে উঠেছে, এমনটা আমি আর দেখিনি।”

মঙ্গলবার এই ঘটনায় পালিয়ে যাওয়া গৃহকর্মীর নামে শাহজাহানপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক রেজাউল করিম বলছেন, ”অভিযোগ পাওয়ার পর থেকেই আমরা তদন্ত শুরু করেছি। আমার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সার্বক্ষণিকভাবে এই ঘটনার নজরদারি করছেন। আশা করছি, খুব তাড়াতাড়ি আমরা মেয়েটিকে গ্রেপ্তার করতে পারবো।”

ইজে