কুরআন হাতে শপথগ্রহণ : যা বললেন মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের প্রথম মুসলিম নারী সদস্য

মুহাম্মাদ শোয়াইব ।।

ধর্মীয় স্বাধীনতার ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রকে আরও উন্নত করা হবে এবং ধর্মীয় স্বাধীনতার নীতিগুলোকে আরও দৃঢ় হবে বলে মন্তব্য করেন সোমালীয় বংশদ্ভূত আমেরিকার প্রতিনিধি পরিষদের প্রথম মুসলিম নারী সদস্য ইলহান ওমর। অবশ্যই ফিলিস্তিন বংশোদ্ভূত রাশিদা তালিবও এবার মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

গত শুক্রবার আমেরিকার প্রতিনিধিদের শপথ অনুষ্ঠানে তুর্কি সংবাদমাধ্যম আনাদুলের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

আমেরিকার প্রতিনিধি পরিষদে প্রথম হিজাব পরিহত সদস্য আরও বলেন, যারা আমাকে নির্বাচিত করেছেন এবং আমাকে গণতন্ত্র সংশোধন ও মানবতার স্বার্থে সংগ্রাম করার জন্য সুযোগ করে দিয়েছেন তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ এবং তাদের প্রতিনিধিত্ব করতে পারব বলে আমিই খুবই গর্বিত।

পবিত্র কোরআনে হাত রেখে শপথ নেওয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘১৯৯৫ সালে সোমালীয় শরণার্থী হিসেবে পালিয়ে আসার সময় আমি কোরআনের এই কপিটা নিয়ে আসি’। তার দাদা কোরআনের এই কপিটি তাকে হাদিয়ে দিয়েছিলেন।

তার দাদা সম্পর্কে তিনি বলেন, আমার দাদাই আমাকে রাজনীতিতে আগ্রহী করে তোলেন। তিনি বিভিন্নভাবে আমাকে অনুপ্রাণিত করতেন। তিনি আমাদের সঙ্গে আমেরিকায় ছিলেন। ২০১৩ সালে তিনি মারা যান।

ইলহান ওমর আরও বলেন, ‘আমি খুব ভালভাবে জানি, আমার দাদা আজ এই জায়গায় আমার সঙ্গে থাকতে ইচ্ছুক ছিলেন। তাই অন্তত আত্মিকভাবে আমি যেন তার উপস্থিত অনুভব করতে পারি সেজন্য তার দেয়া কোরআনে হাত রেখে আমি শপথ গ্রহণ করি।’

মিনেসোটা রাজ্য থেকে ২০০৬ সালে নির্বাচিত কেইথ অ্যালিসন মার্কিন কংগ্রেসের প্রথম মুসলিম সদস্য। অ্যালিসনের দৃষ্টিভঙ্গিই ইলহান ওমর ও রাজনীতিতে আগ্রহী অন্যান্য মুসলিমদেরকে অনুপ্রাণিত করেছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৬ সালে নির্বাচনী প্রচারাভিযানে মিনেসোটা সফরকালে যেসব মন্তব্য করেছিল তা ছিল শরণার্থীদের জন্য অপমানজনক। বলা হচ্ছে, তার দুই বছর জনগণ ইলহান ওমরকে নির্বাচিত করে জবাব দিয়েছে। আমেরিকায় সোমালীয় শরণার্থীদের এক তৃতীয়াংশই মিনেসোটাতে বসবাস করে। ২০১০ সালের সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২৫ হাজার শরণার্থী এখানে বসবাস করে।

সূত্র : আল মুজতামা

পূর্ববর্তি সংবাদনবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে আইনি নোটিশ
পরবর্তি সংবাদআল্লাহর রহমতে হজে আর কোনো অনিয়ম হতে দেবো না : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী