বিমানে টিকিট কেলেঙ্কারি, কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে

ইসলাম টাইমস  ডেস্ক: বিমানের টিকিট ব্লক করে কালোবাজারে বিক্রির মাধ্যমে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি চক্র কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

বিমান মন্ত্রণালয় অনুসন্ধান করে নিশ্চিত হয়েছে চক্রটি এ প্রক্রিয়ায় প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। যার নেতৃত্বে ছিলেন বিমানের পরিচালক (মাকেটিং অ্যান্ড সেলস) আশরাফুল আলম। অপরদিকে তার সিন্ডিকেটের অন্য সদস্যরা হলেন সাবেক জেনারেল ম্যানেজার আতিকুর রহমান চিশতী, লন্ডনের সাবেক কান্ট্রি ম্যানেজার শফিকুল ইসলাম, জিএম আরিফুর রহমান, হংকংয়ের কান্ট্রি ম্যানেজার মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন, কার্গো শাখার মাহফুজুর রহমান, জেটি খান, আবদুল্লাহ, মার্কেটিং শাখার মুসফিক বাবু, জিয়া, জাহিদ বিশ্বাস, এনায়েত হোসেন প্রমুখ।

সম্প্রতি মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এ সংক্রান্ত এক সভায় টিকিট দুর্নীতির ভয়াবহ তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরা হয়।

একপর্যায়ে বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী ও সচিব মহিবুল হকের উপস্থিতিতে অভিযুক্ত আশরাফুল আলম টিকিট দুর্নীতির বিষয়টি স্বীকার করেন।

বুধবার আশরাফকে ওএসডি করে এমডির দফতরে সংযুক্ত করা হয়েছে। সভায় ১১ দফা সিদ্ধান্ত নিয়ে বলা হয়েছে, শিগগিরই এ চক্রের প্রত্যেককে চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে বিমানের পরবর্তী বোর্ড সভায় আলোচনা হবে। একই সঙ্গে যেসব ট্রাভেল এজেন্ট ও সিন্ডিকেট সদস্য সিট ব্লকের সঙ্গে জড়িত ছিল, তাদের চিহ্নিত করার জন্য সিটা থেকে এক বছরের তথ্য-উপাত্ত নিয়ে তদন্তপূর্বক পরবর্তী বোর্ড সভায় উপস্থাপনের জন্য বিমান এমডি’কে নির্দেশ দেয়া হয়।

পরিচালক মার্কেটিং আশরাফুল আলম প্রথমে এসব অনিয়ম-দুর্নীতি অস্বীকার করে। এ পর্যায়ে তার সামনে যুক্তি ও প্রমাণ উপস্থাপন করে টিকিট নিয়ে দুর্নীতি ও লুটপাটের তথ্য-উপাত্ত প্রমাণ করে দিলে তিনি একপর্যায়ে স্বীকার করতে বাধ্য হন। পরে আশরাফুল আলম ভবিষ্যতে এ প্রক্রিয়ায় আর অংশগ্রহণ করবেন না বলেও জানান।

এ প্রসঙ্গে ওএসডি হওয়া পরিচালক আশরাফুল আলম গণমাধ্যমকে বলেন, টিকিট নিয়ে তিনি কোনো অনিয়ম-দুর্নীতি করেননি। বিমানের প্রয়োজনে মাঝেমধ্যে কিছু কর্পোরেট কোম্পানির জন্য টিকিট ব্লক করেছিলেন। এটা সত্য কথা। কিন্তু এর সঙ্গে কোনো দুর্নীতি ও অর্থ হাতিয়ে নেয়ার কারসাজি ছিল না।

পূর্ববর্তি সংবাদআগুনের গুজবে মমেক হাসপাতালের রোগীরা রাস্তায়
পরবর্তি সংবাদমেরাজের ঘটনা কি কুরআন-হাদীস দ্বারা প্রমাণিত?