টিস্যু বক্সে বঙ্গবন্ধুর ছবি, চটেছেন শিক্ষাউপমন্ত্রী

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: বগুড়ায় বঙ্গবন্ধুর মুখোশ পড়ে শিক্ষামন্ত্রীকে স্বাগত জানানোর ঘটনার রেশ না কাটতেই এবার টিস্যু বক্সে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ছেপেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

মুজিববর্ষে বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত ১ হাজার টিস্যু বক্স বিভিন্ন কক্ষে বিতরণের জন্য রাখা হয়েছে। যা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সব জায়গায় সমালোচনার ঝড় বইছে।

এসএমএস টেকনোলজিস নামক এক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে এই বক্স ছাপানোর কার্যাদেশ দেওয়া হয়। প্রতিটি বক্সের দাম ধরা হয়েছে ৫৬ টাকা। যেখানে এর বাজারমূল্য ৫২ টাকা করে।

বঙ্গবন্ধুর ছবি ছাপানোর বিষয়টি জানার পরপরই নিজের কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়েছেন শিক্ষাউপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে তিনি এ নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘মুজিববর্ষের লোগো অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে যত্রতত্র প্রিন্ট করার একটি ঘটনা যা মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে হয়েছে, তা আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। আমরা ইতোমধ্যে এই প্রিন্টের বক্সগুলো বাজেয়াপ্ত করেছি এবং এর পিছনে কে সেটি জানাতে বলেছি। পরিকল্পিতভাবে এই কাজ করা হয়ে থাকলে অবশ্যই শাস্তি পেতেই হবে। আমাদের সমাজ, প্রশাসন, রাজনীতিক পরিমণ্ডলের সবখানেই অবিবেচক আর অতি উৎসাহীর কোনো কমতি নাই। পাশাপাশি অপরাজনৈতিক শক্তির দোসররা তো আছেই! এরা চাইবে যে কোনোভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করতে, বিতর্ক সৃষ্টি করতে। এই চ্যালেঞ্জটি আমাদের আছেই। এই বিশাল প্রশাসনের কোথায় কে কোন বিতর্ক ঘটিয়ে ফেলেছে তা আগে থেকে নিয়ন্ত্রণ কঠিন। তাই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি আর ব্যবস্থা নিয়েই আমাদের এগোতে হবে। সকলের অবগতির জন্য আমরা জানাচ্ছি “মুজিববর্ষের” আনুষ্ঠানিকতা কার্যক্রম ইত্যাদির দিকনির্দেশনা দেওয়ার জন্য একটি জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি আছে। এর প্রধান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। এই কমিটি কর্তৃক নির্দেশিত কাজের বাইরে কিছু করতে চাইলে আমাদের প্রাণপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন দুস্থ, গৃহহীন, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য কল্যাণমূলক কিছু করতে, যেমন তাদের জন্য গৃহনির্মাণ। এতে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলায় তার সাধারণ মানুষের জন্য যেই সমান অধিকারের দেশ তিনি রেখে যেতে চেয়েছিলেন, তা বাস্তবায়নের পথে আমরা অনেক দূর এগুতে পারব। সুতরাং অতিউৎসাহীরা সাবধান!’