লোকসানের মুখে ৬ লাখ মুরগি মেরে ফেললেন ইথিওপিয়ার খামারিরা

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: করোনা মহামারির কারণে লোকসানের মুখে পড়ে লাখ লাখ মুরগির বাচ্চা মেরে ফেলছেন ইথিওপিয়ার খামারিরা। করোনার কারণে লকডাউনে হোটেল মোটেল বন্ধ থাকায় একেবারেই কমে গেছে মুরগির চাহিদা। ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবার অনেক খামারির এখন বেহাল দশা। মে আর জুন মাসের মধ্যে অন্তত সাড়ে ৬ লাখ মুরগির বাচ্চা মেরে ফেলেছেন এখানকার অনেক পোল্ট্রি খামারি। এসব মুরগির বাচ্চার মধ্যে বেশিরভাগেরই বয়স মাত্রি একদিন।

পোল্ট্রি শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট একজন ভেটেরিনারি চিকিৎসক জানান, মাত্র ৫ সপ্তাহে সাড়ে ৬ লাখের মতো মুরগির বাচ্চা মেরে ফেলতে হয়েছে তাদের। এখন তারা হ্যাচারি থেকে ডিম সংগ্রহের চেষ্টা চালাচ্ছে নষ্ট করার জন্য, যেন সরাসরি মুরগির বাচ্চা মারার প্রয়োজন না পড়ে।

একজন হোটেল ম্যানেজার জানান, পণ্য সরবরাহকারীদের অনেকদিন ধরেই কোন কাজ নেই। দুগ্ধজাত পণ্য, মাংসজাত পণ্য এমনকি সবজির সরবরাহ, সবকিছুই থমকে আছে। হোটেল মোটেলগুলো কাজ না করলে তারাও অলস বসে থাকছে। আমদানি রফতানরিও বেহাল দশা। আয় না থাকলে কর্মীদের বেতন পরিশোধও আটকে থাকছে।

একজন পোল্ট্রি খামারি জানান, এ খাতের সাথে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের অনেক মানুষের কর্মসংস্থান জড়িত। সব বয়সী মানুষই এ খাতের সাথে সংশ্লিষ্ট। তাদের কাছে এখন মুরগির কোনো অর্ডারই আসছে না। কতো মানুষ বেকার হয়ে আছে। এখন তাদের কিছুই করার নেই।

করোনা মহামারি বিপর্যস্ত অবস্থায় ফেলেছে পুরো পোল্ট্রি শিল্পকে। হোটেল মোটেল আর রেস্টুরেন্টগুলো এক রকম প্যারালাইসড হয়ে পড়ে রয়েছে। কর্মীদের বেতন তো দেয়া সম্ভব হচ্ছেই না, চলছে কর্মী ছাঁটাই।

দেশটির অর্থমন্ত্রী আহমেদ শিদে জানান, মহামারির কারণে লোকসানব থেকে ঘুরে দাঁড়াতে বিপর্যস্ত মানুষগুলোর দেড় কোটি ডলার অর্থ সহায়তার প্রয়োজন পড়বে।

পূর্ববর্তি সংবাদমেডিকেলের প্রশ্ন ফাঁসের মামলায় ৭ দিনের রিমান্ডে ৩ আসামি
পরবর্তি সংবাদপঞ্চগড়ে নসিমনের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত