ইরাকের শিয়া নেতার সঙ্গে সাক্ষাত করলেন পোপ ফ্রান্সিস

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: ইরাকে শিয়া ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম শীর্ষ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী আল-সিস্তানির সঙ্গে পোপ ফ্রান্সিসের সাক্ষাৎকে ‘ঐতিহাসিক’ বলে বর্ণনা করছে পশ্চিমা সংবাদমাধ্যমগুলো।

আলজাজিরা জানায়, শনিবার ইরাকের পবিত্র নগরী নাজাফ থেকে তারা শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের বার্তা দেন। সেখানে ইরাকে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করা খ্রিষ্টান সংখ্যালঘুদের পাশে থাকতে মুসলিমদের আহ্বান জানান খ্রিষ্টান ধর্মের নেতা।

আয়াতুল্লাহর অফিস ও ভ্যাটিকানের দীর্ঘ আলোচনার সূত্র ধরে শনিবার আল-সিস্তানির বাড়ি যান পোপ।

সাক্ষাতের পর এক বিবৃতি দেয় আল-সিস্তানির অফিস। সেখানে বলা হয়, ইরাকের খ্রিষ্টানদের রক্ষায় ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের ভূমিকা রয়েছে এবং শিয়া নেতা নিশ্চিত করেছেন, সব ইরাকিদের মতো শান্তি ও নিরাপত্তা পাওয়া এবং পূর্ণ সাংবিধানিক অধিকার তাদের রয়েছে।

এ সময় ইরাকের ইতিহাসের সবচেয়ে সহিংস সময়ে দুর্বল ও সবচেয়ে নিপীড়িতদের রক্ষায় আওয়াজ তোলায় আল-সিস্তানি ও শিয়া জনগণকে ধন্যবাদ জানায় ভ্যাটিকান।

পোপের মতে, আল-সিস্তানির শান্তির বার্তা মানব জীবনের পবিত্রতা ও ইরাকি জনগণের ঐক্যের গুরুত্বকে নিশ্চিত করেছে।

একটি বুলেট-প্রুফ বহর নিয়ে নাজাফে যান পোপ। এখানে কয়েক দশক ধরে ভাড়া বাড়িতে আছেন আল-সিস্তানি। এখানেই আছে ইসলামের চতুর্থ খলিফা হযরত আলী (রা.)-্এর মাজার।

আল-সিস্তানির বাড়ির বাইরে ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে পোপের অপেক্ষায় ছিলেন অর্ভ্যথনাকারী। ফ্রান্সিস দরজা দিয়ে প্রবেশ করতেই শান্তির প্রতীক কবুতর উড়ানো হয়।

এরপর আল-সিস্তানি ও পোপ রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। এ সময় ফ্রান্সিস ইরাকের সংখ্যালঘু খ্রিষ্টানদের বিষয়টি তুলে ধরেন। অন্যদিকে শিয়া নেতা সারাবিশ্বের শিয়াদের অবস্থা ‍আলোচনায় আনেন।

নাজাফে পোপের এ সফর ইরাকি টেলিভিশনে সরাসরি প্রচার হয়েছে।

৫০ মিনিটের এ বৈঠক শেষে প্রাচীন উর শহরের দিকে রওয়ানা হন পোপ। যেখানে রয়েছে হযরত ইব্রাহিম (আ.)-এর জন্মস্থান। যিনি ইহুদি, খ্রিষ্টান ও ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের আদিপিতা। এ ছাড়া আন্তঃধর্মীয় সংলাপ ও গণপ্রার্থনায় অংশ নেবেন পোপ।

বিশেষ বিমানে শুক্রবার ইরাকে পৌঁছান পোপ ফ্রান্সিস। করোনা পরিস্থিতিতে এটি তার প্রথম আন্তর্জাতিক সফর। কভিড ও নিরাপত্তার ঝুঁকি থাকলেও এ সফরকে ‘কর্তব্য’ হিসেবে নিয়েছেন পোপ। তিনি ইরাকের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

-এসএন